Breaking News

মাঠ এক হাটু জলঃ চাষীদের মাথায় হাত

Post Views: website counter

 

পূর্ব মেদিনীপুর জেলার দেশপ্রাণ ব্লকের সব অঞ্চলেই ইয়াস দুর্যোগ ও অতিবর্ষনে ধানের বীজতলার দফারফা অবস্থা ।

সমুদ্র উপকূল বর্তী ও রসুলপুর নদীর কূলবর্তী আঁউরাই, আমতলিয়া, বসন্তিয়া,দারিয়াপুর, বামুনিয়া, ধোবাবেড়িয়া অঞ্চলের বিস্তীর্ণ এলাকায় জলোচ্ছ্বাসের ফলশ্রুতিতে নোনাজল ঢুকে পড়ায় জমি চাষের অনুপযুক্ত হয়ে পড়েছে ।

একই সমস্যা কাঁথি-১, কাঁথি-৩, খেজুরী-১, খেজুরী- ২ , ভগবানপুর-২, রামনগর ১ ও ২ ব্লক সহ অন্যান্য ব্লকের চাষের ক্ষেত্রে ও একই রকম সমস্যা দেখা দিয়েছে । দেশপ্রাণ ব্লকের সরদা,চালতি,বসন্তিয়া প্রভৃতি অঞ্চলে অতিবৃষ্টির জমাজলে বীজতলা বিনষ্ট হয়েছে ।

ইয়াস দুর্যোগ কবলিত এলাকায় সফরকালে রাজ্যের কৃষি মন্ত্রী শোভন দেব চট্টোপাধ্যায় নোনাজলের সমস্যা মোকাবিলার জন্য উন্নত প্রজাতির বীজ সরবরাহের অাশ্বাস দেন ।

সেই মত জেলাতে পর্যাপ্ত পরিমাণে উন্নত ধান বীজ রাজ্য কৃষি দপ্তর সরবরাহ করা হয় । ৪/৫ দিন আগে জেলা পরিষদ থেকে ব্লক প্রতি প্রায় ১৫০০/১৬০০ বস্তা করে ধান বীজ সরবরাহ করা হয় । কিছু ব্লক চাষীদের ইতিমধ্যে বীজ ধান বন্টন করে দিয়েছে । কিছু ব্লকে এখনও বীজ ধান বন্টন করা হয় নি ।

জেলা কৃষি দপ্তরের উপ অধিকর্তা কে ই-মেইল বার্তা পাঠিয়ে অবিলম্বে বীজ ধান বন্টনের দাবী জানিয়েছেন প্রাক্তন সহকারী সভাধিপতি মামুদ হোসেন । আশু বীজ ধান বিলি না হলে ক্ষতিগ্রস্থ চাষীদের নতুন করে বীজতলা তৈরী করা দুষ্কর হয়ে পড়বে বলে অভিমত প্রকাশ করেন প্রাক্তন সহকারী সভাধিপতি মামুদ হোসেন ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *