Breaking News

ক্ষেত-বাগান-ঘেরি জলের তলায়ঃজিনিষ পত্রের দাম আগুন হওয়ার আশংকা

Post Views: website counter

 

ঘুর্নিঝড়ের থেকেও পূর্ব মেদিনীপুরে বেশী প্রভাব পড়লো জলোচ্ছ্বাসে।ভেসে গেল গ্রামের পর গ্রাম।এর জেরে ধান-সব্জী-ফুলের জমি,পুকুর জলের তলায়।

ইয়াস দুর্যোগের ফলশ্রুতিতে সামুদ্রিক জলোচ্ছ্বাসে সমুদ্র বাঁধ উপচে ১২/১৪ ফুট জল সুনামির মতো ভাসিয়ে দিল সমগ্র উপকূলবর্তী গ্রাম সমূহকে। দেশপ্রাণ, কাঁথি-১,রামনগর-১ ও ২,খেজুরী-২, নন্দীগ্রাম-১ ব্লকসমূহ সহ হলদিয়া এলাকায় জলোচ্ছ্বাসে জনজীবন বিপর্যস্ত ও অর্থনৈতিক সঙ্কট চরমে উঠেছে।

ইয়াস ঘূর্ণিঝড়ের থেকেও এলাকায় বেশী ক্ষতি হলো কোটাল ও সমুদ্রের জল ফুলে ফেঁপে উঠার ফলে জলোচ্ছ্বাসের ফলে।অনেক জায়গায় সমুদ্র বাঁধ ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে লোকালয়ে জল ঢুকে একতলা বাড়ী পর্যন্ত প্লাবিত হয়েছে। কয়েকশত কোটি টাকার মাছের ভেড়ী জলের তলায়।চাষবাস, ফসল,আনাজ – সব্জী,ফলের বাগান, পানবরোজ,পুকুর, নার্সারি সবই জলের তলায়।কয়েকলক্ষ মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ।

দীঘা,শঙ্করপুর,তাজপুর, মান্দারবনি ,শৌলা, বগুড়ানজলপাই,জুনপুট, বাকীপুট,দারিয়াপুর, পেটুয়া,দহসোনামুই,রসুলপুর, নিজকশবা, হিজলী ,পাঁচুড়িয়া,খেজুরী,ভাঙ্গাবেড়া,কেন্দেমারী,হলদিয়া সহ বিস্তীর্ণ এলাকা জলমগ্ন।

প্রাক্তন সহকারী সভাধিপতি মামুদ হোসেন বলেন সমুদ্র উপকূল বর্তী এলাকা জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত,অর্থনীতি বিধস্ত ও জনজীবন বিপর্যস্ত। মৎস্য চাষীদের ক্ষতিপূরণ সহ ফসল, আনাজপত্র, পান বরোজ,গবাদিপশু,নার্সারির ক্ষয়ক্ষতির পরিপ্রেক্ষিতে ক্ষতিপূরণ, ঘরবাড়ির মেরামতির অনুদান, ক্ষতিগ্রস্থ মানুষজনের জন্য ত্রিপল,খাদ্যসামগ্রী ও পর্যাপ্ত ত্রাণসামগ্রী বরাদ্দ করার লক্ষে জেলার দুই মন্ত্রী ডঃ সৌমেন মহাপাত্র ও অখিল গিরি কে ই-মেইল বার্তা পাঠিয়েছেন প্রাক্তন সহকারী সভাধিপতি মামুদ হোসেন। সেই সাথে জেলা শাসককে দুর্গত মানুষদের উদ্ধার কার্য ও পর্যাপ্ত ত্রাণসামগ্রী প্রদানের আবেদন জানান মামুদ হোসেন।

অপরদিকে জমি-পুকুর-ঘেরি জলের তলায় চলে যাওয়ায় খাদ্য সামগ্রীর দাম আগুন হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে।ফলে করোনা প্রকোপের মধ্যেই খাওয়ার নিয়েও এবার সংকটের মুখে পড়তে চলেছে সাধারন মানুষ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *