Breaking News

দুর্যোগে আটক বাসিন্দাদের উদ্ধারে নামলো ভারতীয় সেনা

Post Views: website counter

 

প্রতিবেশী রাজ্য উড়িষ্যার বালেশ্বরে গিয়ে আছড়ে পড়েছে ঘুর্নিঝড় ইয়াসে।তবে এর প্রভাবে মঙ্গলবার রাত থেকেই দিঘায় শুরু হয়েছিল বৃষ্টি। সমুদ্রে ঢেউয়ের উচ্চতাও বাড়ছিল।

বুধবার ভোরের পর সময় যত এগিয়েছে তত বৃষ্টির তীব্রতা বেড়েছে। সেই সঙ্গে দিঘা ও নিউ দিঘায় গার্ডরেল ছাপিয়ে জল ঢুকতে শুরু করে। তার ফলে বুধবার সকালেই সমুদ্রের নোনা জলে প্রায় ডুবে গিএছলো মূল শহর। এমনকি জলমগ্ন হয় দিঘা থানাও। দিঘার বাজার এলাকা ৫ থেকে ৬ ফুট জলের তলায় চলে গিয়েছে।

.গত বছরের আম্পান দুর্যোগের অভিজ্ঞতা মাথায় রেখে এবং এবারের ঘুর্নিঝড়ের তিব্রতা আঁচ করে অনেক আগে থেকেই দিঘায় উপকূলবর্তী এলাকার বাসিন্দাদের সরিয়ে নিয়ে গিয়েছে প্রশাসন। কিন্তু শহরের বাসিন্দারা বাড়িতেই ছিলেন। যদিও দিঘায় ভিতরে জল ঢুকতে শুরু করায় অনেকেই আতঙ্কে বাড়ি ছেড়ে একটি শিবিরে আশ্রয় নিয়েছেন। জল ঢুকেছে সৈকত শহরের অনেক হোটেলেও।

পরিস্থিতি মোকাবিলায় নামানো হয়েছে সেনা। জল ঢুকেছে মন্দারমণি, শঙ্করপুর, তাজপুর এলাকায়। প্রচুর গ্রাম জলের তলায়। বেশিরভাগ বাসিন্দারাই গ্রাম ছেড়ে আশ্রয় নিয়েছেন ত্রাণ শিবিরে।শুধু রামনগরের সৈকত শহর গুলি নয়, ঘুর্নিঝড় ইয়াসের প্রভাবে একই পরিস্থিতি ধরা পড়েছে বাঁকিপুট,শৌলা, জুনপুট সব জায়গায়।

অধিকাংশ এলাকায় জল বাঁধ টপকে গ্রামে ঢুকে পড়ছে। এর জেরে বহু এলাকায় আবার ফ্লাড সেন্টারগুলির একতলা জলের নীচে চলে গিয়েছে।পূর্ব মেদিনীপুর জেলা প্রশাসন থেকে জানানো হয়েছে, সমূদ্র তীরবর্তী এলাকায় ঝড়ের ব্যাপক প্রভাব পড়েছে।ক্ষয়ক্ষতি প্রচুর হয়েছে।ভরা কোটাল এর মধ্যেই ঘূর্ণিঝড় আছড়ে পড়ায় দুর্যোগ ও দুর্ভোগ বেড়েছে উপকূল এলাকার বাসিন্দাদের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *