Breaking News

অভাবের সংসারেও সততার নজির গড়লো মর্জিনা

Post Views: website counter

 

পাড়া প্রতিবেশী কিংবা পরিচিতদের বাড়িতে যখন ঈদ পালনের জিন্যে নতুন জামা-কাপড় কেনার হিড়িক তখন ১২ বছরের ছোট্ট মর্জিনা খাতুনের বাড়ির ভিন্ন চিত্র ।তবু রাস্তা থেকে সোনার দুল কুড়িয়ে পেয়েও তার মালিককে সেটা ফিরিয়ে দিল অর্থের অভাবে পঞ্চম শ্রেণীতে ভর্তি হতে না পারা এই কিশোরী ।

পূর্ব মেদিনীপুর জেলার খেজুরি-১ ব্লকের অন্তর্গত বেগুনাবাড়ির বাসিন্দা মর্জিনা।স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে-মর্জিনা র বাবা ভিন রাজ্যে কাজের সুবাদে থাকেন। মা থাকে মামার বাড়িতে। তাই পিসির কাছেই ছোটবেলা থেকে লালিত পালিত হচ্ছে মর্জিনা। অভাবের সংসার। কখনও প্রতিবেশীর বাড়িতে ঝিয়ের কাজ করে, আবার কখন ও ভিক্ষাবৃত্তি করে সংসার চলে। লকডাউনে অর্থের অভাবে পঞ্চম শ্রেণীতে ভর্তি হতে পারেনি।অথচ সেই পরিবারের মেয়ে হয়েও কুড়িয়ে পাওয়া সোনার দুল ফিরিয়ে দিল এই কিশোরী।

স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে গত সোমবার বেগুনা বাড়ি হাই স্কুলের দশম শ্রেণীর ছাত্রীদের সবুজ সাথী প্রকল্পের সাইকেল বিলির জন্য কুপন দেওয়া হচ্ছিল। ওই কুপন সংগ্রহ করতে গিয়েছিল গ্রামেরই এক কিশোরী সুচন্দ্রা জানা। তার দাবি,দুপুরে স্কুল থেকে বাড়ি ফিরে এসে মুখে মাস্ক খুলি। তারপর কানের দুল দেখতে পাইনি। বাড়িতে বকুনি শুনে বান্ধবীদের নিয়ে রাস্তায় সোনার কানের দুল খুঁজতে বেরিয়ে ছিলাম।সেই সময় ওই ছোট্ট মেয়েটা এসে দুল ফেরৎ দিয়েছিলো।

মর্জিনার পিসি আজিমান বিবি বলছেন,ভাইজি রাস্তা থেকে কানের সোনার দুল কুড়িয়ে পেয়ে আমাকে দেখিয়েছিল।কি ভাবে এর মালিককে ফেরৎ দেবে জানতে চাওয়ায় তাকে বলেছিলাম কেউ যদি তার নিজের জিনিস বলে প্রমাণ দেখাতে পারে তবে তাকে ফেরত দিয়ে দিবি। নইলে স্কুলে গিয়ে জমা দিয়ে আসবি। পরে শুনলাম গ্রামেরই একটি মেয়ের জিনিস। তাকে ফেরত দিয়েছে ওই দুল।বলেন অভাবের মধ্যেও যে আমার ভাইঝির মধ্যে সততায় খামতি নেই তাতেই আমি গর্বিত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *