Breaking News

“চারকলম” -চার কবির কবিতার এক অনবদ্য কাব্য সংকলন

Post Views: website counter

ইন্দ্রজিৎ আইচ

অন্যতর পাঠ ও চর্চা প্রকাশন থেকে সম্প্রতি প্রকাশিত হলো অতনু ব্যানার্জী, গৌতম চৌধুরী, বিতান ভৌমিক ও বিভাস ভৌমিক এর চার কবির কবিতা নিয়ে এক কবিতার কাব্য সংকলন
“চারকলম”।

এই চার কবির বয়স ৫৭ থেকে ৬০ মধ্যে বয়স। এনারা সকলেই স্কুল জীবন থেকে কবিতা লিখছেন। কবিতা তাঁদের পরিণত বয়সেও সঙ্গী হয়ে থেকেছে।এদের ভেতরে কেউ নিরন্তর ভাবে লিখলেও সে চর্চা ছিলো নিভৃত। কেউ লিখেছেন অল্প।হয়তো সেটা তাঁর কবি-সত্তা। এঁদের দেখবার ভঙ্গিতেও আছে বিস্তর পার্থক্য। দৃষ্টিকোণও আলাদা।

এই কাব্যগ্রন্থ এ কবিতার পর্ব শুরু হয়েছে অতনু ব্যানার্জি র কবিতা দিয়ে।তিনি কবিতা ছাড়াও গল্প লেখেন।তিনি এই বইতে ২৩ টি কবিতা লিখেছেন।তার কবিতায় আছে ছন্দের বাহার।

যেমন “ভালোবাসা শেষ হলে” কবিতায় “ভালোবাসা শেষ হলে ওঠে চাঁদ- কোথায় লুকাই মুখ
এত অপরাধ……
আবার অন্য একটি কবিতায়
কবি লিখেছেন “ভাসিয়ে নেবে” কবিতায় “ভুলের বনে যেই ফেলেছি পা,অমনি আমার আদূর হল গা……..
আহা রে একি সুখ
নেই কোনও দুর্মুখ…..
কবি এই রকম ছন্দে লিখেছেন বেশ কিছু কবিতা। ভালো লাগে আদিখ্যেতা, নাছোড়বান্দা, মশা অথবা, জেনে রাখো, ভয়,ডায়েরি, চাকর-বাকর, সনাতনী, যাওয়া আসার পথে, পরমবীর, যেখানে থামতে হয়
প্রমূখ কবিতা গুলি।

এই কাব্য গ্রন্থ এর দ্বিতীয় কবি হলেন গৌতম চৌধুরী। তিনি কবিতা লেখার পাশাপাশি নিয়মিত ছবি আকেন। ছবি আঁকা তার কবিতাকে সমবৃদ্ধ
করেছে। কবি লিখছেন ছন্দ বিহীন কিছু কবিতা যেখানে বাস্তব ও কল্পনার মেলবন্ধনে জেগে ওঠে কবিতার ভাব।

কবি “অথচ সংরাগ” কবিতায় লিখছেন ” সব কিছু হারানো সত্বেও বলিরেখা আঁকা চাঁদ জোছনা বুলিয়ে দিয়ে পৃথিবীকে ঘুম পাড়ায়।

এই অবকাশে নিশাচর ডানা থেকে ঝরে, স্বপ্ন উপত হয় নিঝুম রাত্রিতে। মন চায় স্বপ্নটুকু…………………….
কবি ” ওরা বলেছিল” কবিতায় লিখেছেন
” ওরা বলেছিল বেঁচে থাকাটাই লক্ষ, ওরা বলেছিল বেঁচে থাকা মানে গান, ওরা বলেছিল বাঁচবার হক মৌলিক
ওরা চেয়েছিল জীবনবহুল প্রাণ”। এই রকম কিছু ভাষার মেলবন্ধনে কবি তবুও যেন কেমন করে, ঘরে ঢুকতেই, বন্ধু, প্রবাল দ্বীপ হবো, নেপথ্যের গল্প এই সব কবিতায় ফুটিয়ে তুলেছেন কবিতার এক অনন্য ভাব।

এই কাব্যগ্রন্থ এর দুই অন্যতম কবি হলেন বিতান ভৌমিক ও বিভাস ভৌমিক। এনারা দুই ভাই। এনারা নিয়মিত কবিতা লিখে আসছেন। বিতান ভৌমিক কবিতা ছাড়া আরো নানা রকম সাহিত্য চর্চা করেন। এই বইতে রয়েছে তার ৬ টি কবিতা।তাঁর ধাঁধা, উদ্ভট নাটকের ভেতর, ডাক্তারি, ভাইরাস, বাইরে বেরোবেন না সব কবিতা গুলোই দীর্ঘ কবিতা। সব কবিতায় রয়েছে বাস্তবতার ছাপ। কবিতার প্রতিটা লাইনে রয়েছে তাঁর জীবনের গল্প। যেখানে বাস্তব কে কাছ থেকে দেখার নানা বর্ণময় ঘটনা, জীবনের ভালো মন্দ, আশা-নিরাশার কথা বিতান ভৌমিকের কবিতায় ফুটে উঠেছে। তাঁর “বাইরে বেরোবেন না” কবিতায় বর্তমান সময়ের নেতা মন্ত্রী দের ভন্ডামী আর মেকি রাজনীতির কথা কবিতায় স্থান পেয়েছে।

কবি লিখছেন “বাইরে বেরোবেন না বলছি বাইরে বেরোবেন না। থালাবাটি ঘটি গেলাস বাজাতে ভুলবেন না। এসব কথা বলার জন্য এসে টিভির পর্দায় বক্তৃতা শেষ করে ডেরায় ফিরে গেলেন সর্দার……. করোনার মতন মারাত্মক রোগ নিয়ে কেন্দ্র ও রাজ্যের ছেলে খেলার কথা কবি তার কবিতায় নিজের মতন করে ফুটিয়ে তুলেছেন।
তাঁর ভাষার মেল বন্ধন, ছন্দের কারুকাজ এবং বর্ণের ও অক্ষরের জাদু যেন কবি মন কে নাড়া দিয়ে যায়

এই ” চারকলম” কাব্যগ্রন্থ এর শেষ কবি হলেন বিভাস ভৌমিক।নিরলস কবিতা লেখাতে তাঁর প্রানের স্পুরন।তিনি লিখেছেন ২০ টি কবিতা। তাঁর প্রতিটা কবিতা ছোটো ছোটো। বিভিন্ন বিষয়
যেমন প্রেম, ধর্ম, রক্ত, বাস্তবে প্রতিদিন ঘটে যাওয়া নানা ঘটনা নিয়ে তার কবিতা নির্মিত হয়েছে।

যেমন তাঁর “ভাঙচুর” কবিতায় কবি লিখছেন ” আয় ঘর ভাঙি, মাটির শরীরে মাটিতেই নামি।

“কবিতা” নামে এই লেখায় কবি লিখেছেন ” তোমার জন্য একটা জীবন যথেষ্ট নয়, আরো কত জীবনের সময় চাই কে জানে? আবার কবি ” দিনান্তের জানলা” কবিতায় কবি লিখছেন ” ক্লান্তির বিন্দু গুলো কপালে ফুটে ওঠে যেন
সন্ধ্যা বেলার তারা—-
চোখের নিচের ছায়াপথ দিয়ে গ্রহান্তরের দিকে চলে যায়…..
এই রকম তিনি লিখেছেন বাঘ, ঐদিকে, অনুভব, প্রলয়, হিংসা, মিথ্যে, অনন্ত ভুবন, সোহম, তীর্থযাত্রা, শহরের রুমাল, হারিয়ে যাওয়া রক্ত বিন্দু, ধর্ম ও ধর্ম, রথযাত্রা, স্পর্শময় জলবিন্দু প্রমুখ কবিতা। যেমন সুন্দর ভাষার বন্ধন তেমন প্রতিটা লাইন মন কে নাড়া দিয়ে যায়।

বইটি যেহেতু চার কবির কবিতা সম্বলিত কাব্যগ্রন্থ
তাই কবি গৌতম চৌধুরী বই এর প্রচ্ছদ এঁকেছেন চারটি কলম। যেখানে কবির ভাবনা ফুটে ওঠে কবিতায়। চমৎকার ছাপা, নির্ভুল বানান, সুন্দর পাতায় ছাপা এই “চারকলম”

কবিতা প্রেমী আগ্রহী পাঠকদের কিছুটা হলেও নাড়া দেবে এই চার কবির কবিতা। বইটার প্রকাশ পেয়েছে ২০২১ এর মার্চমাসে।

বইটির প্রকাশক ” অন্যতর পাঠ ও চর্চা”
১২৩, রাজা সুবোধচন্দ্র মল্লিক রোড, কলকাতা-৭০০০৪৭
দূরভাষ- ৯৮৩০৩১৮৫৭৮
বইটির দাম ১০০ টাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *