Breaking News

মনোনয়নে হাজির কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান ও স্মৃতি ইরানিঃনন্দীগ্রামে জিতবো দাবি শুভেন্দুর

Post Views: website counter

 

শুক্রবার সকাল থেকেই নন্দীগ্রামের বিজেপি প্রার্থীর মনোনয়ন নিয়ে নন্দীগ্রাম জুড়ে ছিল টানটান উত্তেজনা। সকাল ৯টায় তিনি সোনাচূড়ার সিংহবাহিনীর মন্দিরে পুজো দেন। তার পর সেখান থেকে যান জানকী নাথ মন্দিরে। সেখানে যজ্ঞও করেন তিনি। এর পর সোজা হলদিয়ায় যান শুভেন্দু।রাজ্যের অন্যান্য কয়েকটি জেলার আসনের সাথে ২৭ মার্চ পূর্ব মেদিনীপুরের ১৬টি আসনের মধ্যে ৭টি বিধানসভা কেন্দ্রের নির্বাচন রয়েছে প্রথম দফায়। পরে দ্বিতীয় দফায় ১ এপ্রিল ৯টি আসনে ভোট গ্রহন হবে ।সেই দিন নন্দীগ্রামেও ভোট গ্রহন হবে ।

রাজ্যের ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে গিয়েছে নন্দীগ্রাম। এক দিকে মমতা, অন্য দিকে শুভেন্দু। এই দুই প্রতিপক্ষের লড়াইটাই যেন গোটা নির্বাচনের আকর্ষণকেন্দ্র হয়ে দাঁড়িয়েছে। এক জনের গড় রক্ষার লড়াই, তো আর এক জনের সম্মান। মনোনয়ন জমা দেওয়া আগে নন্দীগ্রামে সভা করেছিলেন মমতা। সেই জনসভা থেকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন তিনি। বুধবার মনোনয়ন জমা দিতে গিয়েছিলেন মমতা।

এদিন মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার আগে হলদিয়ায় একটি জনসভা করেন শুভেন্দু অধিকারী। সেই সভায় উপস্থিত ছিলেন দুই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান ও স্মৃতি ইরানি ।

হলদিয়ায় সভা থেকে শুভেন্দু অধিকারী বলেন, দল নন্দীগ্রামে আমায় মনোনীত করেছে। আমি আপনাদের পরিচিত। নতুন করে আমার পরিচয় দেওয়ার কিছু নেই। মাঠটা আমার চেনা।বলেন এই নন্দীগ্রামের আন্দোলনই বাংলায় বাম সরকারের পতন আনে। সরকার বদল করার সময় মানুষ অনেক আশা করেছিলেন। কিন্তু সেটা বাস্তব হয়নি। আজ ২০২১ সাল। আমরা তৃণমূল ছেড়ে দিয়েছি। কারণ তৃণমূল এখন আর রাজনৈতিক দল নয়। তৃণমূল এখন একটা প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি। সম্মান নিয়ে কেউ তৃণমূলে থাকতে পারে না।ওটা এখন পিসি-ভাইপোর প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানিতে পরিণত হয়েছে।এই দলের নেত্রী ও তাঁর ভাইপোই সব। বাকি সবাই ল্যাম্পপোস্ট। এর থেকে রাজ্যকে উদ্ধারের কাজে নেমেছি।

শুভেন্দুর অভিযোগ, কৃষকদের অবস্থাও ভয়াবহ। পিএম কিষাণ নিধি দিয়েছে কেন্দ্র। যেহেতু প্রধানমন্ত্রীর নাম লেখা রয়েছে সে জন্য এই সরকার তা চালু করতে দেওয়া হয়নি। তাঁর কথায় আয়ুষ্মান ভারতের প্রসঙ্গও উঠে এসেছে।আয়ুষ্মান প্রকল্পের সঙ্গে স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পের তুলনা করে রাজ্যের স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পকে ভাওতা বলে সমালোচনা করেন শুভেন্দু অধিকারী। তিনি বলেন, কেউ স্বাস্থ্যসাথীর সুবিধা পেয়েছেন?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *