Breaking News

চূচূড়ার বিধায়ককে ফের টিকিট দেওয়ায় অসন্তোষ এলাকায়

Post Views: website counter

 

চুঁচুড়ার তৃণমূল বিধায়ক অসিত মজুমদারের ওপরই আস্থা রেখে ফের তাঁকে টিকিট দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গত শুক্রবার কালীঘাটের বাসভবনে প্রার্থী তালিকা ঘোষণার সময় মুখ্যমন্ত্রী স্বয়ং চুঁচুড়া কেন্দ্রে অসিতের নাম ঘোষণা করেন। তারপরেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন চুঁচুড়ার একাংশ তৃণমূল কর্মীরা।

তাদের অভিযোগ, গত ১০ বছর বিধায়ক থাকাকালীন এলাকাবাসীর সঙ্গে জনসংযোগ তো দূরঅস্ত, তিনি জড়িয়ে পড়েছিলেন একাধিক দুর্নীতিমূলক কাজে। তাই স্বাভাবিকভাবেই ২০২১ সালের বিধানসভা ভোটের আগে চুঁচুড়ায় প্রার্থী বদলের দাবি করেছিলেন তৃণমূল কর্মীরা।

কিন্তু চুঁচুড়ার কর্মীদের সেই দাবি পূরণ না হওয়ায় এখন ভাঙ্গনের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে হুগলি জেলা তৃণমূল। এখন পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে অসিত মজুমদারকে প্রার্থী হিসেবে বদল না করা হলে বহু নেতাকর্মী তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন।

প্রসঙ্গত ২০১১ সালে শ্রীরামপুরের তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় ও তৃণমূলের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সীর সুপারিশে প্রথমবারের জন্য টিকিট পেয়েছিলেন অসিত মজুমদার। ২০১১ সালে পরিবর্তনের ভোটে জয়ী হন। ২০১৬ সালে ফের প্রার্থী হলে জয় পান তিনি। কিন্তু কয়েক বছর আগে হুগলির প্রশাসনিক বৈঠকের একটি স্টেডিয়াম নির্মাণকে কেন্দ্র করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তীব্র ভৎসনা মুখে পড়েছিলেন অসিত। তারপরেই কর্মী মহলে জোর জল্পনা শুরু হয়েছিল এবারের ভোটে হয়তো আর তিনি টিকিট পাবেন না। কর্মীদের যাবতীয় আশায় জল ঢেলে ফের তাঁকে প্রার্থী করেছেন মমতা।

আর এবার আর কোনও সমঝোতায় যেতে নারাজ হুগলীর চুঁচুড়া এলাকার তৃণমূল কর্মীরা। দলের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে গিয়ে তারা স্বতন্ত্র ভাবে কোনও সিদ্ধান্ত নিতে পারে বলেই জানা যাচ্ছে।

চূচূড়ার এক তৃণমূল নেতার কথায়, বিধায়কের বিরুদ্ধে তথ্য প্রমান সহ বহু দুর্নীতির অভিযোগ মুখ্যমন্ত্রীর কালীঘাটের বাড়িতে জমা দিয়েছিলাম। কিন্তু আমাদের অভিযোগে কর্ণপাত না করে তাঁকে ফের প্রার্থী করায় আমরা হতাশ। চুঁচুড়ার মানুষ অসিতবাবুর কৃতকর্মের জন্য তাকে শাস্তি দেবেন বলেই আমরা মনে করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *