Breaking News

শিশু কল্যাণ সমিতির বিরুদ্ধে খামখেয়ালিপনার অভিযোগ

Post Views: website counter

 

পূর্ব মেদিনীপুর জেলা শিশু কল্যাণ সমিতির বিরুদ্ধে এবার খামখেয়ালী সিদ্ধান্ত নেওয়ার অভিযোগ উঠলো। আরো অভিযোগ শিশুদের কল্যানের জন্যে কমিটি গঠন করা হলেও এর কাজ অনেক সময় শিশুর অকল্যাণের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এমনই অভিযোগ জেলার এগরা-২ ব্লকের বাথুয়াড়ী অঞ্চলের কুম্ভধরবাড় গ্রামের নিঃসন্তান দম্পতি সেক বাবুকালাম উদ্দিন ও খালেদা বিবির।

এই দম্পতি সুত্রে জানা যাচ্ছে রামনগর-২ ব্লকের কাদুয়া অঞ্চলের মনিকাবসান গ্রাম থেকে তাঁরা এক আত্মীয় মারফত খবর পেয়ে গত ২৬.০২.১৮ তারিখে বাদামগাছের জঙ্গল থেকে উদ্ধার হওয়া সদ্যোজাত শিশু কণ্যাকে লালনপালনের দায়িত্বভার কাঁধে তুলে নেন। উলেখ্য বিগত ৫ বছর বিয়ে করার পরেও নিঃসন্তান ছিলেন এই দম্পতি।

এর কারনে জঙ্গলে ফেলে যাওয়া শিশু কন্যাকে পেয়ে স্বর্গের চাঁদ পেয়ে যান তাঁরা।উভয় গ্রামপঞ্চায়েত ও গ্রামবাসীদের সহযোগিতায় তাঁরা শিশু কন্যাকে পালিত সন্ততি হিসাবে গ্রহণ করেন।শিশুকন্যার নাম দেওয়া হয় খুশি খাতুন। বাথুয়াড়ী গ্রামপঞ্চায়েত থেকে প্রদত্ত শিশু কন্যার জন্ম সার্টিফিকেটে বাবা হিসাবে সেক বাবুকালাম উদ্দিন ও মাতা হিসাবে খালেদা বিবি র নামও নথিভূক্ত করা হয়। স্থানীয়দের সুত্রে জানা গেছে এই শিশুকন্যা পরম আদরে নতুন বাবা-মার কাছে বড় হতে থাকে।এর মধ্যেই হঠাৎ করে পালিতা শিশু কন্যা খুশী খাতুনের জীবনে কালোদিন নেমে আসে।

গত ১৮.০১.২১ তারিখে শিশু কল্যাণ সমিতির নির্দেশে খুশী খাতুন( প্রায় ২ বছর বয়স) কে পালিত বাবা-মা র কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়ে ফরিদপুর অনাথ আশ্রমে নিয়ে আসা হয় বলে অভিযোগ করেছেন জেলা পরিষদের প্রাক্তন সহকারী সভাধিপতি মামুদ হোসেন।তিনি জানিয়েছেন পালিত বাবা-মা শিশু কল্যাণ সমিতির সভাপতি দিলীপ দাস সহ প্রশাসনের দুয়ারে দুয়ারে তাঁদের পালিতা কন্যা খুশি খাতুন কে ফিরে পাওয়ার জন্য হত্যে দিয়ে বেড়াচ্ছেন। আজও কোন সুরাহা হয় নি।

 

প্রশাসনিক নির্দেশে এগরা-২ ব্লকের জয়েন্ট বিডিও তদন্ত রিপোর্টে শিশুকন্যা কে পালিত বাবা-মা র কাছে ফিরিয়ে দেওয়ার কথা বললেও শিশু কল্যাণ সমিতির কোন হেলদোল নেই। পরিত্যক্ত শিশুকে উদ্ধার করে লালনপালন করাটাই কি অপরাধ হয়ে গেল? এই রকম ধারণা পালিত বাবা-মা বা জনসাধারণের। প্রাক্তন সহকারী সভাধিপতি হোসেন জেলা শাসক ও জেলা শিশু কল্যাণ আধিকারিককে ই-মেইল বার্তা পাঠিয়ে অবিলম্বে শিশু কন্যা খুশী খাতুনকে পালিত বাবা-মা র কাছে ফিরিয়ে দেওয়ার প্রশাসনিক পদক্ষেপ গ্রহণের আবেদন জানিয়েছেন।

প্রাক্তন সহকারী সভাধিপতি মামুদ হোসেন বলেন সদর্থক ভূমিকা গ্রহণ না করলে পরিত্যক্ত শিশু দের উদ্ধার করে লালনপালন করার মানবিক উদ্যোগটাই আঘাতপ্রাপ্ত হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *