Breaking News

ডাকাত জনরোষে মৃত,তৃনমূলীদের হয়রান কেন? পুলিশকে প্রশ্ন তৃনমুলের

Post Views: website counter

 

মন্দির চুরি,ব্যাঙ্ক ডাকাতি,বাড়ি লুঠ,খুনের মত মারাত্মক মারাত্মক মামলায় অভিযুক্ত আসামীর অস্বাভাবিক মৃত্যুকে সামনে রেখে রাজনীতি করছে বিজেপি ও সিপিএম।পুলিশ দিয়ে তৃনমূল কর্মীদের হয়রান করা হচ্ছে।এটা বন্ধ না হলে বৃহত্তর আন্দোলন হবে বলে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও কাঁথির মহকুমা পুলিশ অফিসারকে হুশিয়ারি দিলো তৃনমূল।

ঘটনার বিবরন গত মঙ্গলবার সকাল নয়টা নাগাদ পূর্ব মেদিনীপুর জেলার কাঁথি ৩ ব্লকের মারিশদা ভাজাচাউলি এলাকায় দঃ পোদ্দা গ্রামে বাসিন্দা জন্মেঞ্জয় দলাই (৪০) সরপাই ব্রীজের সংলগ্ন এলাকায় থেকে নিখোঁজ হয়ে যায়। ঘটনাটা জানতে পেরে তার বাড়ির লোকেরা খোঁজ শুরু করলেও এই যুবকের কোথাও সন্ধান পাওয়া যায়নি। দুপুর ১ টা নাগাদ ভাজাচাউলি তিয়াসী দিঘা এলাকায় রাস্তা পাশে নিখোঁজ যুবকের রক্তাক্ত মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখতে পায় স্থানীয়রা। জন্মেঞ্জয় দলাইর সারা শরীরের একাধিক আঘাত ও রক্তের দাগ ছিল বলে স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি।

এর পরেই ময়দানে নেমে পড়ে সিপিএম ও বিজেপি নেতৃত্ব।সিপিএম নেতা ঝাড়েশ্বর বেরা বলেন মৃত জন্মেঞ্জয় দলাই দীর্ঘদিন ধরে সিপিএমের কর্মী ছিলেন। সিপিএম করার কারণে শাসক দল তৃনমূল কংগ্রেস তার বিরুদ্ধে একাধিক মিথ্যা মামলা দিয়েছিল।তারাই জন্মেঞ্জয়কে খুন করেছে।মারিশদা থানায় সিপিএমের অভিযোগের ভিত্তিতে তিন জন তৃনমূল কর্মীকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

অপরদিকে বিজেপির কাঁথি সংগঠনীক জেলার সভাপতি অনুপ চক্রবর্তী বলেন বিগত এক বছর সিপিএম ছেড়ে জন্মেঞ্জয় তাদের সাথে যুক্ত ছিলো। তিনি বলেন তৃনমূলের কাছ থেকে টাকা খেয়ে সিপিএম এই মামলা হালকা করা জন্য অভিযোগ দায়ের করেছে। পুলিশ খুনীদের আড়াল করার চেষ্টা করেছে। এনিয়ে আমরা অভিযোগ জানাবো। প্রকৃত খুনীদের না ধরলে আগামী দিনে বৃহত্তর আন্দোলনে নামবো।

মৃত জন্মেঞ্জয় দলাইর ছেলে রতন দলাই সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলে “আমার বাবা আগে সিপিএম করলেও, সম্প্রতি সক্রিয় বিজেপি কর্মী ছিলেন” ।

শুক্রবার কাঁথি ৩ নং ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে কাঁথি এস.ডি.পিও’র কাছে একটি ডেপুটেশন দেওয়া হয়। সেখানে বলা হয় মৃত জন্মেঞ্জয় দলাইর নামে এসবি আই, গ্রামীন ব্যাংক ডাকাতি,বাড়ি লুট সহ একাধিক মামলা দায়ের আছে। তার পরেও এই মৃত্যুর সাথে পরিকল্পিত ভাবে তৃনমূলকে জড়ানো হচ্ছে।

কাঁথি ৩ ব্লকের যুব তৃনমূল সভাপতি গৌরি শংকর মিশ্র বলেন জন্মেঞ্জয় দলুইর প্রতি সাধারন মানুষের ক্ষোভ প্রচন্ড এলাকায়।তেমন ভাবে এলাকায় দেখা যেতনা।এই পরিস্থিতিতে মঙ্গলবার তাকে একা হাতের কাছে পেয়ে মানুষ তাদের ক্ষোভ উগরে দিয়েছে।এই খুনের সঙ্গে তৃণমূলের কোন যোগ নেই, জনরোষের কারণে জন্মেঞ্জয় খুন হয়েছে।

গৌরীশংকর মিশ্র বলেন ২৭ মার্চ প্রথম দফার নির্বাচনের দিন তাঁদের ব্লক সভাপতি নন্দ মাইতিকে খুন করতে হামলা চালায় বিজেপি ও সিপিএম।এখন সেই দায় মুক্ত হতেই মিথ্যা কথা বলে আইনের আশ্রয় নিয়ে তৃনমূলীদের হয়রান করছে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *