Breaking News

শুভেন্দু গড়ে তৃনমূলে গোষ্ঠী কোন্দল প্রকাশ্যে,পদ ছাড়লো চার নেতা

Post Views: website counter

 

বিধানসভা নির্বাচনের আগে এবার পূর্ব মেদিনীপুর জেলার যুব তৃণমূল কংগ্রেসের গোষ্ঠী কোন্দল প্রকাশ্যে এলো। পদ নিয়ে মতানৈক্যের জেরে কাঁথি মহকুমা চারজন যুব তৃনমূল কংগ্রেস নেতা এক সঙ্গে পদত্যাগ পত্র পাঠালেন জেলা যুব তৃনমূল কংগ্রেস সভাপতি সুপ্রকাশ গিরির কাছে। এর জেরে পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দল কার্যত প্রকাশ্যে চলে এলো। জেলায় দলের যুব সংগঠনের শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে মনোমালিন্যের কারণে এই এমন কান্ড বলে মনে করছেন রাজনৈতিক মহল।

শুক্রবার সকালে পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় নতুন করে যুব তৃনমূল কংগ্রেস পদ বন্টন করা হয়। তারপরেই দলের গোষ্ঠী কোন্দল প্রকাশ্যে আসতে শুরু করে । দলীয় সুত্রে জানা গেছে পুরানো কমিটিতে কাঁথি টাউনের যুব তৃনমূল কংগ্রেস সভাপতি ছিলেন ইমরান আলি খান। নতুন কমিটিতে তাঁকে পুরানো পদ থেকে সরিয়ে জেলা যুব তৃনমূল কংগ্রেস সাধারণ সম্পাদক পদে নিযুক্ত করা হয়েছে। আমিন সোহেল ছিলেন যুব তৃনমূল কংগ্রেস সাধারণ সম্পাদক। নতুন কমিটিতে তাঁকে জেলা যুব তৃনমূল কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির সদস্য করা হয়েছে। কাঁথি ১ ব্লক যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সহ-সভাপতি নন্দ বেজ ও পলাশ খাটুয়াকে করা হয়েছে। এরপর রাতেই এই চারজন পূর্ব মেদিনীপুর জেলা যুব তৃনমূল কংগ্রেস সভাপতি সুপ্রকাশ গিরির কাছে তাঁদের পদত্যাগ পত্র পাঠিয়ে দেন।

পদত্যাগী  যুব তৃনমূল কংগ্রেস কাঁথি ১ ব্লকের সহ সভাপতি পলাস খাটুয়া ও  নন্দ বেজ বলেন ” আমাদের আগেও যুব তৃনমূল কংগ্রেস সহ সভাপতি করা হয়েছিল। কিন্তু আমাদের কোন মিটিং ও মিছিলের ডাকা হচ্ছে না। তাই পদ ছাড়লাম। তাঁরা আরও বলেন আগামী দিয়ে তৃনমূল কংগ্রেস কর্মী হয়ে কাজ করবো। পদ ছাড়লাম দলের হয়েই আমরা কাজ করবো “।

আমার নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেও ক্ষোভ প্রকাশ করে আমিন সোহেল বলেন ” দলের পদে থেকেই কোন কাজ করতে পারছি না, তাই দলের পদ ছাড়লাম “।

যদিও এই সমন্ত অভিযোগ পুরোপুরি উড়িয়ে দিয়েছেন জেলা যুব তৃনমূল কংগ্রেস সভাপতি সুপ্রকাশ গিরি। তিনি বলেন ” দলের প্রয়োজনে বিভিন্ন নেতাকে তাঁর পুরানো পদ থেকে সরিয়ে অন্য পদে বসানো হয়েছে। আপনারা যাদের কথা বলছেন,তাঁদের জেলার অনেক বড় পদে বসানো হয়েছে। আমরা সকলেই মমতা বন্দোপাধ্যায়ের আদর্শ মেনে সৈনিক হয়ে কাজ করছি,করবো। পদ যাবে আসবে”।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *