Breaking News

হলদী নদীর পাড় থেকে বাম-কংগ্রেসের ভোটকে পদ্মে আনার ডাক মোদীর

Post Views: website counter

 

“বাংলার উন্নয়নের জন্য এখানেও ডাবল ইঞ্জিন সরকার প্রয়োজন। বিজেপি এলেই এখানে আসল পরিবর্তন ঘটবে। পরিবর্তন কী তা ত্রিপুরার মানুষ অনুভব করছেন। ওখানেও বছরের পর বছর অত্যাচার সইছিলেন সাধারণ মানুষ। কিন্তু আমারা পরিশ্রম বন্ধ করিনি। আজ দেখুন ওখানে কত উন্নয়ন ঘটেছে।” রবিবার হলদিয়ার সভা থেকে রাজ্যের নীলবাড়ি দখলের লড়াইয়ের ব-কলমে নির্বাচনী লড়াইয়ের প্রস্তুতি শুরু করে দিলেন মোদী।

রাজ্যের মমতা ব্যানার্জীর সরকারকে ক্ষমতা থেকে সরাতে বাম-কংগ্রেস জোটের ভোট বিজেপির বড়বাধা বুঝে সেখানে ফাটল ধরাতে সাবধান বানী শুনিয়ে বলেছেন ‘‘গোপন বন্ধুত্ব থেকে সাবধান থাকুক। পর্দার আড়ালে বাম-কংগ্রেসের সঙ্গে তৃণমূলের সমঝোতা চলছে। দিল্লিতে একসঙ্গে বসে রণকৌশল তৈরি করেন এঁরা। কেরলে তো বাম-কংগ্রেসের সমঝোতাই রয়েছে, যে ৫ বছর তোমরা লুঠপাট চালাও, ৫ বছর আমরা চালাব। এখানেও সেই ষড়যন্ত্রে চলছে। এদের সমর্থনে ভোট নষ্ট করলে ধোঁকাবাজির শিকার হবেন আপনারা ।’’

হলদিয়ার সভা থেকে রাজ্যের ভোটারদের বিধানসভা নির্বাচনের আগে সতর্ক করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর!

একই সাথে মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃনমূল সুপ্রীমো মমতা ব্যন্যার্জীকে ঝাঁজালো আক্রমণ করে নরেন্দ্র মোদীর অভিযোগ “গত ১০ বছর ধরে ‘মমতা’ নয়, ‘নির্মমতা’ পেয়েছে বাংলার মানুষ।অনেক আশা নিয়ে পরিবর্তন এনেছিলেন মানুষ। কিন্তু পরিবর্তনের বদলে রাজ্যে বাম আমলের অন্ধকার দিনগুলোই আবার ফিরে এসেছে।”

মোদীর অভিযোগ মমতাদির সরকার গরিব মানুষের জন্য একেবারে ভাবে না। তার অন্যতম উদাহরণ দিয়ে বলেন আয়ুষ্মান যোজনা থেকে বাংলার মানুষকে বঞ্চিত রাখা। বলেন ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত সুবিধা পেতে পারতেন সকলে। কিন্তু এখানকার সরকার বাংলায় কেন্দ্রের প্রকল্প বাস্তবায়িত হতে দিচ্ছে না।

অভিযোগ এনেছেন, ‘‘ভারতকে বদনাম করতে এই মুহূর্তে আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র চলছে। ভারতের ভাবমূর্তি নষ্টের পরিকল্পনা চলছে। যাঁরা মা-মাটি-মানুষের কথা বলেন ভারতমাতাকে নিয়ে কোনও আবেগ নেই তাঁদের। তাই আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র নিয়ে দিদির মুখ থেকে একটি কথাও বেরোয় না।’’আশ্বাস দিয়েছেন বাংলায় বিজেপির সরকার গঠন হলে কেন্দ্রের সমস্ত প্রকল্প অতি দ্রুত বাংলায় কার্যকর হবে। দেশের অন্য কৃষকদের মতো সমস্ত সুযোগ সুবিধা পাবেন বাংলার কৃষক।

রবিবার হলদি নদীর পাড় থেকে রাজনৈতিক প্রচার এর প্রথম দিনেই ঝাঁজালো আক্রমণ শানালেন। তাৎপর্যপূর্ণভাবে এদিন সভামঞ্চ থেকে বাংলায় বক্তব্য রাখলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বাংলার জনতার মন ছুঁতে খাঁটি বাংলায় তুলে ধরলেন মেদিনীপুরের ইতিহাসও। এমনকী, বাজেটে বাংলার জন্য একাধিক বরাদ্দের কথাও ফের তুলে ধরলেন প্রধানমন্ত্রী।

মোদীর দাবী যাঁরা সত্যি সত্যিই গরিবের কথা ভাবেন, তাঁরা সকলেই রাম রাম বলে তৃণমূল ছেড়েছেন। আজ আমাদের সঙ্গে রয়েছেন ওঁরা। বাংলাকে তোলাবাজ মুক্ত করে ছাড়ব আমরা।
বলেন,বাংলার মানুষ ফুটবলপ্রেমী। সেই ভাষাতেই বলি, তৃণমূল একের পর এক ফাইল করেছেন, অপশাসন, বিরোধীদের উপর হিংসা, বাংলার মানুষের টাকা লুঠ এবং বিশ্বাসের উপর ফাউল। খুব শীঘ্র বাংলার মানুষ তৃণমূলকে রাম কার্ড দেখাতে চলেছেন। পিসি-ভাইপোর সরকারকে উৎখাত করার পরিকল্পনা নিয়ে ফেলেছেন বাংলার মানুষ।

কেন্দ্রীয় বাজেটে বাংলার সড়কের ওপর বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করেন মোদী । বলেন নতুন প্রকল্পে লাভবান হবেন স্থানীয়রা। সড়়কে যোগাযোগ বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনবে। গ্যাস প্রকল্পের সুূবিধা পাবে বিভিন্ন জেলা। ২৫ শতাংশ বরাদ্দ বেড়েছে রেলে। বাংলায় অনেক জেলায় এলপিজি পাইপ লাইনে পৌঁছবে। পূর্ব মেদিনীপুরে মৎস্যবন্দর হাব হবে। কেন্দ্রীয় প্রকল্পে চা শ্রমিকদের অনেক উন্নয়ন হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *