Breaking News

কেশপুরের গড়সেনাপত্যায় রক্তদান শিবির ও অন্যান্য কর্মসূচি

Post Views: website counter

 

পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার কেশপুর ব্লকের গড়সেনাপত্যার “আমরা সবাই” সংগঠনের উদ্যোগে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর ১২৫ তম জন্মদিবসের আগে নানা কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হলো ।এই উপলক্ষ্যে বুধবার সকালে থ্যালাসেমিয়া আক্রান্ত শিশুদের পাশে দাঁড়াতে সংগঠনের উদ্যোগে এবং মেদিনীপুর ক্যুইজ কেন্দ্র সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি ও ওয়েস্ট বেঙ্গল ভলান্টারি ব্লাড ডোনার্স ফোরামের সহযোগিতায় গড়সেনাপত্যা প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে একটি রক্তদান শিবির অনুষ্ঠিত হয়।উল্লেখ্য এটি ছিল “আমরা সবাই” এর উদ্যোগে এই ধরনের প্রথম প্রয়াস।

এ দিনের শিবিরে ১৩ জন মহিলা সহ মোট ৪৭ জন রক্তদাতা রক্তদান করেন।সদ্য আঠারো বছর পেরোনো এক যুবতী সহ ১৩ জন মহিলা রক্তদাত্রীই এই প্রথমবার রক্ত দিলেন। পুরুষদের মধ্য সদ্য আঠারো বছর পেরোনো ৩ জন যুবকসহ ১৮ জন পুরুষ প্রথমবার রক্ত দান করেন।

রক্ত সংগ্রহ করেন মেদিনীপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ব্লাডব্যাংক। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন গড়সেনাপত্যা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক স্নেহাশিস চৌধুরী,মুগবসান গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রাক্তন প্রধান কমল দেব, এলাকার বর্ষীয়ান শিক্ষক লক্ষণ চন্দ্র দেবসহ গড়সেনাপত্যা প্রাথমিক ও জুনিয়র হাইস্কুলের শিক্ষকমন্ডলী। হাজির ছিলেন কেশপুর ব্লকের অন্যান্য বিদ্যালয়ের বেশকিছু শিক্ষক-শিক্ষিকা। আমরা সবাই এর পক্ষে উপস্থিত ছিলেন রাধেশ্যাম ঘোড়‌ই, পাঁচকৌড়ি দেব,অচিন্ত্য দোল‌ই,মানস ঘোষ,অর্ণব মণ্ডল,লক্ষীকান্ত পুইল্যা,মানস পুইল্যা প্রমুখ। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ব্লাড ডোনার্স ফোরামের অসীম ধর, জয়ন্ত মুখার্জি,ক্যুইজ কেন্দ্রের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন গৌতম বোস, সুভাষ জানা, অরিন্দম দাস,শবরী বসু,সুতপা বসু, নরসিংহ দাস প্রমুখ।

পাশাপাশি এদিন বিকেলে মানবিক দেওয়াল কর্মসূচির মাধ্যমে শীতবস্ত্র সহ অন্যান্য বস্ত্র বিতরণ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়াও সন্ধ্যায় “হৃদমাঝারে” ও “সুজন বন্ধু” মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপস্থাপন করে। “হৃদমাঝারে” বংলা ব্যান্ডের পক্ষে গান শোনান দীপেশ দে।অন্যদিকে “সুজন বন্ধু” বাংলা লোকগানের দলের পক্ষে গান শোনান দীপঙ্কর শীট ও বুলন দে।কোভিড অতিমারিতে গ্রামীণ এলাকায় নিরন্তর স্বাস্থ্য পরিষেবা দেবার জন্য স্থানীয় চিকিৎসক ডাঃ গজেন্দ্রনাথ মান্না ও ডাঃ সুব্রত চক্রবর্তীকে বিশেষ সম্মাননা প্রদান করা হয়। এদিন সকাল থেকেই বিভিন্ন কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে উৎসাহী মানুষের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *