Breaking News

মুখ্যমন্ত্রীও স্বাস্থ্য সাথী কার্ড করেছে:বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়

Post Views: website counter

 

প্রদীপ কুমার সিংহ

রাজ্যের আর পাঁচ জন সাধারন মানুষের মত মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও স্বাস্থ্য সাথী কার্ড করেছেন। এটা সারা ভারতের মধ্যে এক অভিনব প্রকল্প হিসাবে স্থান করে নিয়েছে বলে দাবি করেন বারইপুর পশ্চিম বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক তথা বিধানসভার অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়।

মঙ্গলবার নরেন্দ্রপুর কামালগাছি বাইপাসের ধারে এক শ্রমিক মেলা উদ্বোধন করতে এসে বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় কথা বলেন। সেইসঙ্গে রাজ্য সরকারের শ্রম মন্ত্রী মলয় ঘটক বলেন যে
বামেদের আমলে শুরু হওয়া সামাজিক সুরক্ষা যোজনায় ১১ বছরে যে পরিমাণ টাকা খরচ হয়েছে, তৃণমূলের ৯ বছরে তার দুশো গুনেরও বেশি টাকা খরচ হয়েছে। বামেরা এগারো বছরে ৯ কোটি টাকা খরচ করে ছিল। আর মা মাটি মানুষের সরকার আঠারোশোর ও বেশি টাকা খরচ করেছে।

যদিও এদিন শ্রমিক মেলায় শ্রমমন্ত্রীর হাজির হওয়ার সময়েই কামালগাজি মোড়ে বামেরা বিক্ষোভ দেখায়। আজ থেকে কামালগাজি মোড়ে দুদিন ব্যাপী শুরু হয়েছে বারুইপুর শ্রমিক মেলা । এই মেলার উদ্ধোধন করেন শ্রমমন্ত্রী মলয় ঘটক ও স্পিকার বিমান বন্ধোপাধ্যায়।

বিধায়ক ফিরদৌসী বেগম, জীবন মুখোপাধ্যায়, নির্মল মন্ডল প্রমুখ। বামেদের অভিযোগ সরকার একের পর এক মেলা করলেও শ্রমিকরা বঞ্চিত। এই বঞ্চনার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতেই এদিন প্রতিবাদ মিছিল বের করেন তারা। ঘটনাস্থল থেকে বিক্ষোভকারীদের সরিয়ে দেয় নরেন্দ্রপুর থানার পুলিশ। অশান্তি এড়াতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন ছিল।জেলা সি আই টি ইউ, কর্মীরা বিক্ষোভ দেখিয়ে মিছিল করেন। যদিও এই বিষয়টি পাত্তা দিতে না রাজ তৃণমূল নেতৃত্ব। তাদের দাবি বামেরাই তাদের আমলে শ্রমিকদের জন্য কিছু করে নি।

তৃণমূল সরকার শ্রমিকদের কথা ভাবছে। সামাজিক সুরক্ষা যোজনায় শ্রমিকদের কোন টাকা দিতে হচ্ছে না। সরকার সবটাই বহন করছে। অধ্যক্ষ বিমান ব্যানার্জী বলেন, এই সরকারই প্রকৃত শ্রমিক ও কৃষকদের উন্নয়নে কাজ করছে। সেই সঙ্গে এই মেলার মঞ্চ থেকে বেশ কিছু মানুষকে দু লক্ষ টাকা ও ৫০ হাজার টাকা দিয়েছেন বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় ও মলয় ঘটক। এরা কেউ বারুইপুরে বাড়ি কেউবা কুল্পি থানায় বাড়ি কেউবা সোনারপুরে বাড়ি কিছু লোককে পেনশনের ব্যবস্থা করে দিয়েছে প্রত্যেক মাসে ৭৫০ টাকা।

আগে শ্রমিকদের কুড়ি টাকা করে দিতে হতো সরকারকে আর সরকার ২৫ টাকা জমা দিতে এখন শ্রমিকদের কোন টাকা লাগবে না একথা বলেন সময় মন্ত্রি মলয় ঘটক। এই মেলাতে শ্রমজীবী মানুষদের ফরম ফিলাপ করা হচ্ছে যাদের ৬০ বছর বয়স হয়ে গেলে পেনশন পাবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *