Breaking News

শুভেন্দু চ্যাপ্টার ক্লোজ করে লক্ষন ম্যাটার অন !

Post Views: website counter

কংগ্রেস ছেড়ে কি এবার তৃণমূলে যোগদান করবেন হলদিয়ার এক সময়ের দাপুটে সিপিএম নেতা ও প্রাক্তন সাংসদ লক্ষণ শেঠ।শহীদ ক্ষুদিরাম বসুর ১৩২ তম জন্মদিনের বিকালে এমন জল্পনা মাথাচাড়া দিলো রাজ্য রাজনীতিতে !

বৃহস্পতিবার বিকালে শুভেন্দু অধিকারীর গড় হলদিয়ার এক অরাজনৈতিক মঞ্চে এক সাথে দেখা গেল লক্ষণ শেঠ ও রাজ্য তৃণমূলের মুখপাত্র কুনাল ঘোষকে।আর তার পরেই রাজ্য রাজনীতিতে জল্পনা তুঙ্গে। তবেকি রাজ্যের শাসক দল শুভেন্দু চ্যাপ্টার ক্লোজ করে লক্ষন ম্যাটার অন করছে ?

রাজ্যের শাসক দলের তরফে অবশ্য এমন কোন সম্ভাবনা নেই বলে দাবি করা হয়েছে। লক্ষণ শেঠের তৃণমূলের যোগদান প্রসঙ্গ এড়িয়ে যান কুনাল ঘোষও। তিনি দাবি করছেন এটা সম্পন্ন অরাজনৈতিক মঞ্চ ।

বৃহস্পতিবার শহীদ ক্ষুদিরাম বসু ১৩২ তম জন্মদিন। এনিয়ে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার একাধিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। সকালে তমলুকে অরাজনৈতিক মঞ্চে দেখা গিয়েছে নন্দীগ্রামের বিধায়ক শুভেন্দু অধিকারী। এদিন বিকালে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার শিল্পনগরী হলদিয়ায় দুটি অনুষ্ঠান হয় ।একটি দাদার অনুগামীদের উদ্যোগে।আর একটি অনুষ্ঠান তৃনমূল নেতৃত্বের উদ্যোগে তবে অরাজনৈতিক ব্যানারে। দূর্গাচক এলাকায় টাউন ক্লাবের মাঠে এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন হলদিয়ার একসময়ের বেতাজ বাদশা তথা প্রাক্তন সাংসদ লক্ষ্মণ শেঠ ও তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ। অনুষ্ঠানের মূল তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন নন্দীগ্রাম আন্দোলনের নেতা মধুসূদন মন্ডল ওরফে নারায়ন।

এদিনের অনুষ্ঠান মঞ্চে কুনাল ঘোষ ও লক্ষ্মণ শেঠ কারোর গলাতেই কোন রাজনৈতিক দলের কথা শোনা যায়নি।

পরে সাংবাদিকদের তৃণমূল মুখপাত্র কুনাল ঘোষ বলেন,”লক্ষণদাকে চিনি বহুদিন। সাংবাদিকতা করতে গিয়ে যখন রাজ্য বিধানসভা অধিবেশন কভার করতাম ঘটনাচক্রে আমাদের প্রেস গ্যালারির যেখানে আমরা বসতাম তার ঠিক সামনে যিনি বসতেন তিনি হলেন লক্ষণদা। সরকার থেকে যখন নানা নথিপত্র দিত সাংবাদিকতার স্বার্থে আগাগোড়া যিনি সহযোগিতা করে গেছেন তিনি কিন্তু লক্ষ্মণ শেঠ। বহু দিনের পরিচয়। আজকের এই মঞ্চটি অরাজনৈতিক মঞ্চ। মধুদা এবং আপনাদের সকলের উদ্যোগে ক্ষুদিরাম বসুকে স্মরণ করা হচ্ছে। মধুদা সকলকে ডেকেছেন। তিনি লক্ষণদাকে ডেকেছেন আমাকে ডেকেছেন আরও যাদের দেখেছেন তারা এসেছেন। আশা করি এই রাজনৈতিক সভা নিয়ে কোন প্রশ্ন উঠবে না।”উল্লেখ্য তমলুকের সাংসদ নির্বাচিত হওয়ার সুতাহাটা বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক ছিলেন লক্ষন।বর্তমানে এই কেন্দ্রটি হলদিয়া বিধানভা কেন্দ্র ।

সিপিএম ছেড়ে বিজেপি ঘুরে বর্তমানে কংগ্রেসের নেতা তমলুকের প্রাক্তন সাংসদ লক্ষ্মণ শেঠ তৃনমূল যোগদান প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্ন এড়িয়ে যান।তবে দাবি করেন পৃথিবীতে সবই হতে পারে।

যদিও এই নিয়ে কটাক্ষ করতে ছাড়েননি বিজেপি নেতৃত্ব। তমলুক সাংগঠনিক জেলার সহ সভাপতি প্রলয় পাল বলেন নন্দীগ্রাম আন্দোলন করেই তৃনমূল ক্ষমতা এসেছিল।তৎকালীন লক্ষণ শেঠের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নেমেছিল। আর এখন হলদিয়া একই মঞ্চে সাংসদ সারদা কাণ্ডে অভিযুক্ত আসামী কুনাল ঘোষ ও লক্ষণ শেঠ সভা করছেন। দুজনকে একই মঞ্চে দেখা যাচ্ছে। নন্দীগ্রামের ভয়াবহ গনহত্যার ঘটে ছিল। অনেক তরতাজা যুবকের প্রাণ বলি দিতে হয়েছিল। তৃনমূল রাজনীতি ভাবে দেউলিয়া। লক্ষণ শেঠের খুব প্রয়োজন।

যদিও এই সম্ভাবনা  পুরোপুরি উড়িয়ে দিয়েছেন রাজ্য যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সহ সভাপতি সুপ্রকাশ গিরি বলেন এটা সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক অনুষ্ঠান। এর সঙ্গে রাজনীতি কোন সম্পর্ক নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *