Breaking News

বিদ্যালয়ের সৌন্দর্যায়নে এগিয়ে এলেন প্রাক্তনীরা

Post Views: website counter

 

 

মৌপাল দেশপ্রাণ বিদ‍্যাপীঠের প্রাক্তনীরা বিদ‍্যালয়ের সৌন্দর্য বৃদ্ধি ও প্রাকৃতিক পরিবেশকে আগের অবস্থায় ফিরিয়ে দেওয়ার কাজে প্রধান শিক্ষক সহ বিদ‍্যালয় কর্তৃপক্ষকে সাহায্য করতে এগিয়ে এলেন ।বিদ‍্যালয়েয় শিশুবান্ধব পরিবেশ নষ্ট হতে বসেছে । জানুয়ারি মাস থেকে হয়ত নিয়মিত হতে পারে স্কুল । এমতাবস্থায় বিদ্যালয়ের প্রাক্তনীরা এগিয়ে এলেন বিদ্যালয়ের পরিচ্ছন্নতা ও পবিত্রতা রক্ষায় ।

বেশ কয়েকমাস ধরে স্কুল বন্ধ অতিমারির কারণে ।করোনা সংক্রমণের ফলে ছাত্র-ছাত্রীদের স্কুলে আসা বারণ।বিদ‍্যালয়ে জরুরি কাজে বিদ‍্যালয়ে আসেন প্রধান শিক্ষকসহ অন‍্যান‍্য শিক্ষক-শিক্ষিকা ও শিক্ষাকর্মীরা।এই করোনা আবহে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার শালবনী ব্লকের মৌপাল দেশপ্রাণ বিদ‍্যাপীঠের বিদ্যালয় ক‍্যাম্পাসের অনেকটাই ঘাস, ঝোপঝাড়ে ভর্তি হয়ে উঠেছে ।সাপের উপদ্রবও বাড়ছে ।

শুধু বাগান পরিচর্যা নয়, সাফাই অভিযানের পাশাপাশি ফুল, ফল ও সবজি চারা রোপণেও হাত লাগালেন প্রাক্তনীরা। প্রাক্তনীদের মধ্যে টাটা ইনস্টিটিউট অব ফান্ডামেন্টাল রিসার্চের গবেষক অলক মাহাত যেমন আছেন, তেমনি রয়েছেন ওয়ার্লপুল কোম্পানির সামগ্রী বিক্রি ও মেরামতের সঙ্গে যুক্ত অমল মাহাত, অন‍্যদিকে কলেজ পড়ুয়া বিমল মাহাত যেমন আছেন তেমনি আছে অনুর্ধ ১৮ বছর সুব্রত কাপে খেলা খেলোয়াড়সহ অন‍্যান‍্যরা ।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ড.প্রসূনকুমার পড়িয়া করোনা আবহে লকডাউনের সময়ও নিয়মিত স্কুলে আসছিলেন । কিন্তু স্কুলের অগোছালো পরিবেশ ও আগাছা ইত্যাদি দেখে মন খারাপ হয়ে যায় তাঁর । প্রসূনবাবু তাঁর সহকর্মী দেবব্রত সাঁতরা, শিক্ষাকর্মী গৌরাঙ্গ চালক, পরিচালন সমিতির অভিভাবক প্রতিনিধি নীলোৎপল সাউ, ছাত্রাবাসের সহযোগী সুদীপ চক্রবর্তী ও ভরত মাহাত প্রমুখদের সহযোগিতায় সাধ্যমত বাগান পরিচর্যা ,বৃক্ষরোপণ ও ফুল ও সবজির চারাগাছ লাগানো ইত্যাদি করছিলেন ।কিন্তু সেটাই যথেষ্ট ছিল না ।

অন‍্যদিকে চাষের কাজ চলায় প্রয়োজনীয় কাজের লোক পাওয়া যাচ্ছিল না দরকার মতো । তখনই প্রাক্তন ছাত্রদের সঙ্গে যোগাযোগ হয়। তাদের আগ্রহ ও বিদ্যালয়ের প্রতি ভালোবাসা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে আপ্লুত করে। সবার মিলিত প্রচেষ্টায় বিদ‍্যালয়ে সৌন্দর্যায়নের কাজের ফলে আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই মৌপাল দেশপ্রাণ বিদ্যাপীঠের সৌন্দর্য অনেকাংশে ফিরে আসবে বলে বিদ্যাপীঠ কর্তৃপক্ষের বিশ্বাস ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *