Breaking News

আডবানি,সুষমা স্বরাজেরা পাশে না দাঁড়ালে নন্দীগ্রামে সাফল্য পেতনা আন্দোলনকারীরা:শঙ্কুদেব পন্ডা

Post Views: website counter

 

আজকে যারা নন্দীগ্রাম আন্দোলনের সাফল্যের ভাগ নেওয়ার চেষ্টা করছেন,তাঁরা লালকৃষ্ণ আডবানি,সুষমা স্বরাজের অবদানের কথা স্বীকার করছেন না তো ? তাঁদের অবদানের কথা বলতে ভয় লাগছে।আরে সেই সময় শুভেন্দু অধিকারী সামনের থেকে লড়াই না করলে আর বিজেপি সহায়তা না দিলে সিপিএমের হার্মাদদের সামনে টিকতে পারতেন আপনারা।বুধবার পূর্ব মেদিনীপুর জেলার মেচেদায় দলীয় সভা থেকে এভাবেই তৃনমূলের নেতৃত্বের কাছে এক গুচ্ছ প্রশ্ন ছুঁড়ে দিলেন বিজেপির যুব মোর্চার রাজ্য সহ সভাপতি শঙ্কুদেব পণ্ডা।

মেচেদার এই জনসভায় উপস্থিত ছিলেন বিজেপির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক কৈলাস বিজয়বর্গীয়
রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক তথা সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়,রাজ্য কৃষাণ মোর্চা সভাপতি মহাদেব সরকার প্রমুখ।

শঙ্কুদেব পন্ডা বলেন এক সময় তৃণমূল পার্টি করে যে পাপ করেছিলাম। ভারতীয় জনতা পাটি করে পাপের প্রায়শ্চিত্ত করছি। তিনি তার বক্তব্যের পুরানো দিনের ইতিহাস কথা তুলে ধরেন।বলেন নন্দীগ্রাম আন্দোলনের সেই সময়টা লালকৃষ্ণ আডবানী ও সুষমা স্বরাজের অবদানের কথা তৃনমূল কংগ্রেস ভুলে যেতে পারে, আমরা তা পারি না৷ নন্দীগ্রামের মানুষ ভুলেনি সেই অবদানের কথা।

শঙ্কুদেব পন্ডা বলেন আমি তখন সাংবাদিকতা করি, লালকৃষ্ণ আডবানী সেদিনকে এখানে না এলে নন্দীগ্রামে অনেকের নেতা হতে পারতেন না। এই সভা থেকে বিজেপিতে সদ্য যোগদান করা তৃণমূলে জেলাপরিষদ খাদ্য কর্মাধ্যক্ষ সিরাজ খান রাজ্য সরকারে বিরুদ্ধে ক্ষোপ উগরে দেন। তিনি খাদ্য কর্মাধ্যক্ষ থাকাকালীন স্বাধীন ভাবে কাজ করতে পারছিলেন না। তিনি সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়াতে অনেক ছদ্মবেশে দুর্নীতি আটকানোর করছেন। কিন্তু দল থেকে এই কাজে সাহায্য পাননি,উল্টে বাধা পেয়েছেন।তাই মানুষের কাজ করতে বিজেপিতে যোগদান করতেন৷ আগামী দিনে বিজেপি হয়ে মানুষের কাজ করতে চাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *