Breaking News

প্রয়াত আহমেদ পটেল:বন্ধু হারালো গান্ধী পরিবার

Post Views: website counter

 

দলের দুর্দিনে গান্ধী পরিবারের একান্ত বিশ্বাস ভাজন,একনিষ্ঠ কর্মী আহমেদ পটেলকে হারালো কংগ্রেস।গুরুগাঁওয়ের এক হাসপাতালে বুধবার ভোররাতে তিনি মারা যান।

বুধবার ভোর ৪টে নাগাদ টুইট করে বাবার মৃত্যুর খবর জানিয়েছেন ফৈজল পটেল। বাবার আত্মার শান্তি কামনা করে সেই টুইটে তিনি লিখেছেন, ‘অত্যন্ত দুঃখের সঙ্গে জানাচ্ছি, আমার বাবা আহমেদ পটেল ২৫ নভেম্বর ভোর সাড়ে ৩টেয় প্রয়াত হয়েছেন। এক মাস আগে কোভিড-১৯-এ আক্রান্ত হওয়ার পর থেকেই বিভিন্ন অঙ্গ অকেজো হওয়ায় তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হচ্ছিল’। পাশাপাশি করোনা স্বাস্থ্যবিধি বজায় রেখে আহমেদের শেষকৃত্যে জমায়েত না করার অনুরোধ করেছেন।মৃত্যুকালে আহমেদের বয়স হয়েছিল ৭১ বছর।

বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতার মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ রাজনৈতিক মহল। টুইটে শোকজ্ঞাপন করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি । কংগ্রেসকে শক্তিশালী করে তোলার নেপথ্যে তাঁর অবদান আজীবন স্মরণীয় বলেই টুইটে উল্লেখ করেন তিনি।

নিজের রাজনৈতিক জীবনের শুরু থেকেই গাঁধী পরিবারের কাছের লোক ছিলেন আহমেদ। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গাঁধীর উপদেষ্টা ছিলেন তিনি। দীর্ঘ দিন সনিয়ার রাজনৈতিক সচিবও ছিলেন। মাত্র ২৮ বছর বয়সে তরুণ কংগ্রেস নেতা হিসাবে তাঁকে লোকসভার টিকিট দিয়েছিলেন ইন্দিরা গাঁধী। ১৯৭৭ সালে গুজরাতের বারুচ থেকে লড়েছিলেন তিনি। তার পর ৩ বার লোকসভার সাংসদ এবং ৫ বার রাজ্যসভার সাংসদ হয়েছেন। বিভিন্ন সময়ে কংগ্রেসের বিভিন্ন দায়িত্ব সামলেছেন তিনি।

“নির্ভর করার মতো একজন মানুষ চলে গেলেন”,  টুইটে এভাবেই শোকজ্ঞাপন করেছেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী।

আহমেদের মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করে রাহুল গাঁধী লিখেছেন, ‘আজ দুঃখের দিন। কংগ্রেস দলের স্তম্ভ ছিলেন আহমেদজি। দলের সবচেয়ে খারাপ দিনেও তিনি পাশে ছিলেন। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত কংগ্রেসের জন্য বেঁচেছেন। উনি দলের বড় সম্পদ ছিলেন। আমরা ওঁর অভাব অনুভব করব। ফৈজল ও তাঁর পরিবারকে আমার সমবেদনা ও ভালবাসা’।

কংগ্রেস সভাপতি সনিয়া গাঁধী বলেছেন, ‘‘বিশ্বস্ত সহকর্মী এবং বন্ধুকে হারালাম। এই ক্ষতি অপূরণীয়।’’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *