Breaking News

পূর্ব মেদিনীপুরে রেশন দুর্নীতির বিরুদ্ধে উদাসীন দল:ইস্তফা জেলা পরিষদের খাদ্য কর্মাধ্যক্ষের !

Post Views: website counter

 

সামনেই একুশের বিধানসভা নির্বাচন। তার আগে একদল থেকে অন্য দলে যোগদানের পর্ব ইতিমধ্যে পূর্ব মেদিনীপুর জেলা জুড়ে শুরু হয়ে গিয়েছে। ইতিমধ্যে নন্দীগ্রাম, হলদিয়া সহ গোটা জেলা থেকে প্রায় হাজারেরও বেশি কর্মী সমর্থক বিজেপিতে যোগদান করেছেন।আবার অন্য দল থেকে শাসক দল তৃনমুলেও যোগ দিয়েছেন বহুজন।

ইতিমধ্যেই নন্দীগ্রাম- ২ ব্লকের বয়াল – পঞ্চায়েতের প্রধান – উপ প্রধান বিজেপিতে যোগদান করেছে।দাবি নন্দীগ্রাম বিধানসভা এলাকার ১৭টি পঞ্চায়েত এলাকার আর কয়েক জন জনপ্রতিনিধি ও তৃনমূলের স্থানীয় স্তরের নেতৃত্ব বিজেপিতে যোগদান করেছেন।এবার সেই তালিকায় সম্ভবত যুক্ত হতে চলেছেন পূর্ব মেদিনীপুর জেলা পরিষদের খাদ্য কর্মাধ্যক্ষ সিরাজ খাঁন।

তবে এখনই কোন দলে যোগদানের কথা না জানালেও,তিনি তার এক সাক্ষাৎকারে নিজের পদত্যাগের ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন।তাঁর অভিযোগ তিনি খাদ্য কর্মাধ্যক্ষ থাকা অবস্থায় স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারছেন না। এছাড়াও বিভিন্ন সমস্যার দিক জেলা পরিষদের মিটিংয়ে তিনি আলোচনা করলেও তা সুরাহা হচ্ছে না। তাই আগামী দিনে পদত্যাগের ইচ্ছা প্রকাশ করলেন খাদ্য কর্মাধ্যক্ষ।

সিরাজ খাঁন বলেন ,তিনি বহু বছর মাছ নিয়ে তার কর্মকান্ড ছিলো।জেলা পরিষদের ভোটে জয়ী হওয়ার তিনি তসি মৎস্য কর্মাধ্যক্ষের পদ চেয়েছিলেন।কিন্তু তাঁকে সেই পদ দেওয়া হয়নি।পরে তাকে খাদ্য কর্মধ্যক্ষের পদ দেওয়া হয়।অভিযোগ করেন সেখানে কাজ করতে এসে তাঁকে অসহযোগিতার মুখে পড়তে হচ্ছে।

বলেন রেশন ব্যবস্থায় দুর্নীতি রোখার চেষ্টা করেও অজ্ঞাত কারনে সহযোগিতা পাচ্ছেন না।বলেন এই বিশজয়ে ফোন করে দলের নেতৃত্বকে জানালেও কোন ফল মেলেনি।অভিযোগ করেছেন দলের জেলা সভাপতি শিশির অধিকারী তাঁর ফোন ধরলেও, শুভেন্দু বাবু বেশিরভাগ সময় ফোন ধরেন না।তিনি এখনও পদত্যাগ না করলেও দল ছাড়বেন খুব শিঘ্রই এমনই ইঙ্গিত দিলেন।তবে বিজেপিতে এখনই যাবেন কিনা তা স্পষ্ট করে বলেননি।তবে সময়ই তা উত্তর দেবে বলে জানান।

আগামী ২৫ তারিখ মেছেদায় বিজেপির রাজ্য নেতৃত্বদের নিয়ে সভা রয়েছে।মনে করা হচ্ছে ওই দিনেই রাজানৈতিক পালাবদল ঘটতে পারে, এমনটাই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।তবে সিরাজ বাবু এও জানান,তিনি কাজ করতে এসেছেন।যেখানে কাজ করার সুযোগ পাবো, সেখানেই আমি আগামীদিন যাবো। সবকিছু এখন সময়ের অপেক্ষা।

উল্লেখ্য খাদ্য কর্মাধ্যক্ষের দ্বায়িত্ব নেওয়ার পরে সিরাজ খানকে জেলা জুড়ে বিভিন্ন জায়গায় দেখা গিয়েছে মাঠে নেমে রেশন ব্যবস্থাকে কেন্দ্র করে গজিয়ে ওঠা অসাধু চক্রের বিরুদ্ধে অভিযান চালাতে। কোথাও কোনো অভিযোগ থাকলে সেখানে তৎক্ষণাৎ গিয়ে ব্যবস্থা নিতে দেখা গেছে কর্মাধ্যক্ষ কে। সাম্প্রতিক বেশ কয়েকদিন ধরে জেলার বিভিন্ন প্রান্তে নিম্নমানের ছোলা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল। এনিয়ে পর্যাপ্ত অভিযোগ খতিয়ে দেখার পর খাদ্য কর্মাধ্যক্ষ সিরাজ খান পাঁশকুড়ার একটি কিষাণ মান্ডিতে ছোলা গোডাউনে অভিযান চালিয়ে নিম্নমানের সামগ্রী বাজেয়াপ্ত করেন । এইসব নিয়ে জেলা পরিষদের বৈঠকে তিনি জানালেও কোনরকম ব্যবস্থা নিতে দেখা যায়নি ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *