Breaking News

বাংলার মাটি জেহাদীদের আস্তানা হয়েছেঃকৈলাস,ফের শুভেন্দুকে স্বাগত জানালেন লকেট

Post Views: website counter

রাজ্যের শাসক দল তৃনমূলের গড় বলে পরিচিত পূর্ব মেদিনীপুর জেলা থেকেই আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের দামামা বাজিয়ে দিয়ে গেলেন  বিজেপির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক তথা এই রাজ্যের পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়।তিনি লাগাতার আক্রমন করলেন রাজ্য সরকার,মুখ্যমন্ত্রী মমতা  ব্যানার্জী ও সাংসদ অভিষেক ব্যানার্জীকে।

কৈলাস বিজয়বর্গীয় এর সাথে একই ভাষায়,একই পথে আক্রমন শানালেন রাজ্য সাধারণ
সম্পাদক সাংসদ জ্যোতির্ময় সিং মাহাত,বিধায়ক সব্যসাচী দত্ত,রাজ্যসভার সাংসদ স্বপন দাসগুপ্ত এর মত কেন্দ্রীয় ও রাজ্যস্তরের নেতারা।আর রাজ্যের সাধারন সম্পাদক সাংসদ লকেট চ্যাটার্জি তাঁর ভাষনের বেশীর ভাগটাই ব্যয় করলেন রাজ্যের পরিবহন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীকে ঘিরে।

রামনগরের যোগদান মঞ্চ থেকে বিজেপি কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক কৈলাস বিজয়বর্গীয় বলেন ‘এই বাংলার মাটিতে বাংলাদেশের দুষ্কৃতকারীদের আগমন ঘটছে। বাংলার মাটি আজ সুরক্ষিত নেই।মা আর সুরক্ষিত নেই, মাটিও সুরক্ষিত নেই।’তিনি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কটাক্ষ করেন। আপনার পুরো তৃণমূল পার্টি পিকের  হাতে এখন। এখন তৃণমূল পার্টি মমতার নয়। আজ তৃণমূলে মুকুলদা নেই। তৃণমূল আজ শুভেন্দু অধিকারীরও নেই। কোন সৎ ব্যক্তি এখন  তৃণমূলে নেই। তৃণমূল এখন ভাইপোর কাছে চলে গিয়েছে।”

বলেন, ‘ পশ্চিমবাংলায় আপনারা কংগ্রেসের সরকার দেখেছেন। আপনারা সিপিএমের সরকারও দেখেছেন। সিপিএমের সরকারের সময়েও হত্যা হয়েছে, লুটপাট হয়েছে। এরপর আপনারা সোনার বাংলা গড়ার আশায় মমতা  বন্দ্যোপাধ্যায়কে আসনে বসিয়েছিলেন। পশ্চিমবঙ্গের মানুষ একবার নয় দুবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আশীর্বাদ করেছেন।  যেখানে মায়ের সুরক্ষা নেই, বোনের সুরক্ষা নেই, সেখানে সেই রাজ্যের একজন মহিলার মুখ্যমন্ত্রী থাকার কোন অধিকার নেই।”

এদিনের সভা সাংসদ রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক লকেট চট্টোপাধ্যায় শুভেন্দু অধিকারী প্রসঙ্গে বলেন তৃনমূল পাটি আস্তে আস্তে  যারা সত্যিকারে নেতা তথা মানুষের কাজ করেন তারা বেরিয়ে আসছেন। শুভেন্দু অধিকারী দলে এলে আমরা স্বাগত জানাবো। আরও  অনেক সাংসদ আগামী দিনে ভারতীয় জনতা পাটি যোগাযোগ করছেন। তারা হোয়াটস অ্যাপ কলের মাধ্যমে যোগাযোগ রাখছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *