Breaking News

হিন্দু-মুসলমান দুই সম্প্রদায়ের উদ্যোগে জুনপুটে দূর্গা পুজা

Post Views: website counter

দুর্গা পুজোয় সম্প্রীতির এক অনন্য নজির পূর্ব মেদিনীপুর জেলার কাঁথি-১ ব্লকের জুনপুট বাজার এলাকার বারোয়ারি পূজার আয়োজন। প্রায় দেড় দশক ধরে চলা এই ব্যতিক্রমী পুজোকে ঘিরে এলাকার হিন্দু-মুসলিম দুই সম্প্রদায়ের মানুষজনই সমানভাবে আনন্দে মেতে ওঠেন।

করোনা আবহের মধ্যেই পুজোর প্রস্তুতি চলছে জোর কদমে। এই জায়গায় ধর্মীয় ভেদাভেদের বেড়া ভেঙে যায় এবং মিলনোৎসবের বিরল ছবি লক্ষ্য করা যায়। জুনপুট সিডাইক বাজারের ব্যবসায়ীদের পরিচালনায় পুজোয় সম্প্রীতির নিদর্শন ভীষণভাবে পরিলক্ষিত হয়।

এই পুজোয় হিন্দু-মুসলিম দুই সম্প্রদায়ের মানুষজন সমানভাবে শামিল হন। এখানকার পুজো ১৩তম বছরে পা দিল। পুজো কমিটির সভাপতি রয়েছেন হাসান খান। অন্যদিকে সম্পাদক অরুণাভ দে। পুজো কমিটিতে শতাধিক সদস্য রয়েছেন। তার মধ্যে বেশিরভাগই জুনপুট সিডাইক বাজারের ব্যবসায়ী।

পুজোয় চাঁদা তোলা থেকে শুরু করে অতিথি আপ্যায়ন, প্রসাদ বিতরণ, পুজো সংক্রান্ত নানা কাজকর্ম পরিচালনা-সবকিছু দুই সম্প্রদায়ের মানুষজন মিলেমিশেই করেন। জুনপুট বাজারেই পুজোর আয়োজন করা হয়। সেখানে গিয়ে দেখা গেল, মণ্ডপ ও প্রতিমা তৈরির কাজ জোরকদমে চলছে।

সংঘের অন্যতম সদস্য বিনয় দে বলেন, এখানে ধর্মীয় ভেদাভেদ তুচ্ছ। আমরা সবাই মিলেই পুজোয় শামিল হই। এখানকার পুজোয় হিন্দু-মুসলিম বলে কিছু নেই। আগামী দিনেও আমরা একই নিদর্শন ধরে রাখব। একই কথা বললেন সভাপতি হাসান খানও। এখানকার পুজোকে ঘিরে জুনপুট সহ আশপাশের কাদুয়া,রংমালাপুট, হরিপুর, বিচুনিয়া সহ কয়েকটি গ্রামের মানুষজন আনন্দে মেতে ওঠেন। পুজো উপলক্ষে নানা অনুষ্ঠান ও সমাজসেবামূলক কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। সেই সঙ্গে বসে মেলাও।

সব মিলিয়ে পুজোর সময় সম্প্রীতির এক বড় নির্দশন হয়ে রয়েছে জুনপুটের পুজো। পুজোয় সমস্ত করোনা বিধি মেনে চলা হবে বলে বিনয়বাবু জানান। দুরত্ব বজায় রেখে প্রতিমা দর্শনের ব্যবস্থা করা হবে। অঞ্জলি প্রদানে রয়েছে একই ব্যাবস্থা। করোনার কারণে এবার জমায়েত এড়াতে সব অনুষ্ঠানই বাতিল করা হয়েছে। শুধু নিয়ম মেনে কয়েকটি কর্মসূচি পালন করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *