Breaking News

ফের অমানবিক শহরের মানুষ:দুর্ঘটনাগ্রস্থ যুবকের বিনা চিকিৎস্যায় মৃত্যু

Post Views: website counter

 

প্রদীপ কুমার সিংহ

স্কুটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সোজা গিয়ে ধাক্কা মারে ডাম্পারের পিছনে। তার জেরে স্কুটি চালকের মৃত্যু হয়। স্কুটি চালকের নাম তরুণ কুন্ডু (৪৮)। ঘটনাটি ঘটেছে জুলপিয়া ও বারুুইপুর এর মধ্যে নীধি ইটভাটার কাছে। নীধি ইট ভাটা টংতলা কাছেই অবস্থিত। যদিও জায়গাটা বিষ্ণুপুর থানার অন্তর্গত।

স্থানীয়দের থেকে জানা গেছে দুর্ঘটনার পর বহুক্ষন ধরে স্কুটি চালক আশঙ্কাজনক অবস্থায় রাস্তায় পড়ে ছিল। আইনী বিড়াম্বনায় পড়ার ভয়ে ঘটনাটি দেখেও কেউ স্কুটি চালককে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে যাওয়ার কোন ব্যবস্থা করেনি। উল্টে চোখের সামনে এমন দুর্ঘটনা ঘটতে দেখেও বহু জন দ্রুত সেই স্থান থেকে সরে পড়ে।

তবে সকলে অমানবিকতার পরিচয় দেয়নি। মাঠে ধান গাছে পাম্পে করে জল দেওয়ার সময় এক চাষীর ভোখে পড়ে এই ঘটনাটা । ওই ব্যক্তি ছুটে এসে দুর্ঘটনার কবলে পড়া স্কুটি চালক রাস্তা তুলে একটি অটো করে বারুইপুর মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে আসে। বারুইপুর মহকুমা হাসপাতালের চিকিৎসকরা সেখানেই এই তরুণ কুন্ডু নামের যুবককে মৃত ঘোষণা করে।

জানা গেছে তরুণ বাবু স্ত্রী বারুইপুর মহকুমা হাসপাতালে নার্স। নাম রিনা কুন্ডু। সোনারপুর থানার অন্তর্গত সুভাসগ্রামে হরহরি তলায় বাড়ি। তরুণ বাবুর দুটি ছোট ছোট বাচ্চা আছে। পরিবার সুত্রে জানা গেছে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে মৃত যুবক তরুণ কুন্ডু পেশায় এক ইঞ্জিনিয়ার। হরহরি তলা থেকে জুলপিয়া যাচ্ছিলেন নিজের কাজ করতে। রাস্তায় এই ভয়াবহ দুর্ঘটনার পড়ে।

বারুইপুর মহকুমা হাসপাতাল থেকে পরে বারুইপুর থানায় খবর দিলে বারইপুর থানা পুলিশ তরুণ বাবুর দেহটি ময়নাতদন্তের জন্য নিয়ে যায়।

তবে বিষ্ণুপুর থানা এই ব্যাপারে তদন্ত করে দেখছে তরুণ বাবু এক্সিডেন্টটা কী করে হল। তরুণ বাবু কি ড্রিংক করেছিল কিনা তা তদন্ত করে দেখছে। তবে তরুণ বাবু স্ত্রী কথা অনুযায়ী তরুণ বাবুর মাথায় হেলমেট ছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *