Breaking News

শাহরুখ-আমিরদের খোঁজ নেই:ফ্লিম ইন্ড্রাস্ট্রির ২৫ হাজার দিন মজুরের ত্রাতা ভাইজান

Post Views: website counter

 

সারা বিশ্বের মত ভারত জুড়ে করোনার আতংক।দেশের কেন্দ্র সরকার ও রাজ্য সরকার গুলি নিরন্তর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে দেশের সকল মানুষকে এই মহামারি থেকে রক্ষার।সেই প্রচেষ্টার সাথে যুক্ত হয়েছেন দেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রের ছোট বড় মাঝারি সেলিব্রিটি সহ সাধারন মানুষেরাও।

তবে সেলিব্রিটিদের নিয়ে চর্চা সোস্যাল মিডিয়ায়।এর মধ্যে অক্ষয় কুমার ২৫ কোটি টাকা ও টাটা গোষ্ঠী করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য ১৫০০ কোটি টাকা প্রধানমন্ত্রীর ত্রান তহবিলে দান করেন ।এর পরেই আশ্চর্য জনক ভাবে সোস্যাল মিডিয়ায় বিভিন্ন সেলিব্রিটি ও শিল্পপতিদের নাম করে কোটি কোটি টাকা দানের মিথ্যা প্রচার শুরু হয়ে যায়।

যেমন শিল্পপতি আজিম প্রেমজী ৫০ হাজার কোটি টাকা,সলমন খান ২২৫ কোটি টাকা,শাহারুখ খান ২৫০ কোটি টাকা কিংবা আমির খান ২০০ কোটি টাকা দান করেছেন।এমন আরো অনেকের নাম,প্রতিষ্ঠানের নাম ওই তালিকায় আছে ।যদিও সত্যিটা হল এনারা কিংবা ওই প্রতিষ্ঠান গুলি এখনো  কেন্দ্র কিংবা রাজ্য সরকারকে কোন টাকা দান করেন নি ।দান নিয়েও রাজনীতি কিংবা মিথ্যা প্রচার বোধহয় এই দেশেই সম্ভব!

তবে সলমান খান নগদ ২২৫ কোটি টাকা দান না করলেও যা করেছেন তাতে ওনাকে সম্মান না জানিয়ে পারা যায় না ।ভাইজানের এই কাজই তার উপস্থিতি আর ব্যাক্তিত্ব আলাদা করে দেয় শাহারুখ,আমির কিংবা সইফ আলিদের থেকে! কি করেছেন ভাইজান?রিলিফ ফান্ডে সরাসরি অর্থ সাহায্য না করলেও ২৫ হাজার দিন মজুরের দায়িত্ব নিয়েছেন সলমন খান।

২১ দিনের লকডাউনের জেরে অন্যান্য ক্ষেত্রের মতো বিনোদন দুনিয়াতেও যে বড়সড় আর্থিক ধ্বস নামতে চলেছে, তা আর আলাদা করে বলার অপেক্ষা রাখে না! সবচাইতে ক্ষতিগ্রস্থ হবেন জুনিয়র টেকনিশিয়ানরা। যারা কিনা সিনেমার সেটে দিনরাত খেটে পরিচালকের ভাবনাকে পর্দায় ফুটিয়ে তুলতে সাহায্য করেন। আর তাই সেই সমস্ত স্পটবয়, সেটের দিনমজুরদের সমস্যার কথা চিন্তা করে এগিয়ে এসেছেন সলমন খান।

এই অবশ্য প্রথম নয়। সলমন খান সারা বছর ধরেই নানারকম সামাজিক কাজকর্মের সঙ্গে যুক্ত কিংবা ভিন্ন সময়ে ভিন্ন প্রেক্ষিতে একাধিকবার ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির অসহায়দের ত্রাতা হিসেবে ধরা দিয়েছেন।
এবারও তাই এই লকডাউনে প্রায় ২৫ হাজার দিনমজুরের দায়িত্ব একাই নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছেন বলিউডের ভাইজান।

“ভাইজান তুসি গ্রেট হো”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *