Breaking News

শারজিল ইমামের গ্রেফতারের প্রতিবাদে জলঙ্গীতে মিছিল ! চললো গুলি-বোমাঃমৃত দুই

Post Views: website counter

সংশোধিত নাগরিকত্ব বিলে রাষ্ট্রপতি সিলমোহর দেওয়ার পর থেকেই বিক্ষোভের আগুনে ফুঁসতে শুরু করে মুর্শিদাবাদ।সেই মুর্শিদাবাদের  জলঙ্গিতে সিএএ বিরোধী আন্দোলনে গুলি চালানোর ঘটনায় শুরু রাজনৈতিক চাপানউতোর। ইতিমধ্যেই গুলি চালানোর ঘটনায় নাম জড়িয়েছেন ব্লক  তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি তহিরুদ্দিনের। যদিও অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করে পালটা কংগ্রেসকে কাঠগড়ায় তুলেছে তৃণমূল।

প্রাথমিক ভাবে জানা গিয়েছে, ‘নবজাগরণ’ নামে একটি অরাজনৈতিক সংগঠন এ দিন জলঙ্গি থানা এলাকার সাহেবনগরে সিএএ বাতিলের দাবিতে  এবং এনআরসি-র বিরুদ্ধে বন্‌ধের ডাক দেয়। স্থানীয় বাসিন্দাদের একাংশের দাবি, ওই সংগঠনে বিভিন্ন রাজনৈতির দলের কর্মীরা থাকলেও তাঁরা  মূলত অরাজনৈতিক একটি আন্দোলন তৈরির চেষ্টা করেছিলেন।

নুর ইসলাম নামে এক প্রত্যক্ষদর্শীর দাবি, এ দিন সকাল ৭টা থেকে সাহেবনগর  বাজারে অবস্থানে বসেন বন্‌ধ সমর্থনকারীরা। তাঁর অভিযোগ, সাড়ে আটটা নাগাদ তিন-চারটি গাড়ি এসে থামে বাজারের সামনে। ওই গাড়িগুলোতে  ছিলেন তৃণমূলের স্থানীয় নেতা ও কর্মীরা।গুলিতে মারা গিয়েছেন সানারুল বিশ্বাস (৬০) এবং সালাউদ্দি শেখ (১৭)।” এলাকাবাসীর দাবি, আরও  অন্তত তিনজন গুলিবিদ্ধ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

তৃণমূলের মুর্শিদাবাদ জেলা সভাপতি আবু তাহের খান এ দিনের ঘটনা প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘শারজিল ইমামের গ্রেফতারের প্রতিবাদে বন্‌ধের ডাক দিয়েছিল একটি অরাজনৈতিক মঞ্চ। কিন্তু সেখানে সিপিএম-কংগ্রেসের সঙ্গে মিম-পিএফআই-এর মতো মৌলবাদী শক্তি ঢুকে পড়ে অশান্তি পাকানোর চেষ্টা করছে।”  তাঁর দাবি, ‘‘আমার দলের নেতৃত্ব কেন গুলি চালাতে যাবে? এ সব মিথ্যে অভিযোগ। পুলিশ তদন্ত করুক। কিছু দুষ্কৃতী গুলি চালিয়ে এলাকায় অশান্তি  পাকাচ্ছে। আমি ঘটনাস্থলে যাচ্ছি।’’

কংগ্রেসের অভিযোগ, তৃণমূল চায়নি তাঁদের বাদ দিয়ে সিএএ বিরোধী আন্দোলনে পথে নামুক কোনও দল। সেই কারণেই নাগরিক মঞ্চ এদিন বিক্ষোভ দেখালে সেখানে গুলি চালায় তৃণমূলের দাপুটে নেতা তহিরুদ্দিন। যদিও অভিযোগ ভিত্তিহীন বলেই দাবি অভিযুক্তের। তাঁর কথায়, এদিনের বিক্ষোভে  হামলা চালায় কংগ্রেস। একের পর এক গাড়ি ভাঙচুর করে তাঁরা। রাস্তার উপর কার্যত তাণ্ডবলীলা চালানোর অভিযোগ তোলেন তিনি।

এবিষয়ে বিধায়ক চক্রবর্তী বলেন, সিএএ সম্পর্কে দল নিজেদের অবস্থান একাধিকবার স্পষ্ট করেছে। তাই কোনওভাবেই এই হামলার সঙ্গে কংগ্রেসের যোগ তা অসম্ভব বলেই জানান তিনি।নিহতদের দেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। আততায়ীর খোঁজ পাওয়া যায় নি। নতুন কোনও অশান্তি যাতে তৈরি না হয় সে কারণে ঘটনাস্থলে বিশাল পুলিশবাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। অবরোধকারীদের সঙ্গে কথা বলছে পুলিশ। ঘটনার তদন্ত শুরু করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *