Breaking News

পরিবহন মন্ত্রীর দেওয়া পোষাক কেনার টাকা বাঁচিয়ে ট্রাই-সাইকেল আরোহীদের বর্ষাতি দিলো নিমতৌড়ি হোমের দিব্যাঙ্গরা

Post Views: website counter

হাতে গোনা আর মাত্র কয়েকটি দিন পূজোর ঢাকের কাঠি বেজে গেছে মহালয়া থেকে। মনের আনন্দে মাতৃদর্শনে বেরোনোর অপেক্ষায় এখন সবাই। প্যান্ডেলে প্যান্ডেলে ঘোরা খাওয়া দাওয়ার, নতুন পোশাক, বন্ধু-বান্ধব নিয়ে আড্ডা, গল্প-গুজব, কত কি। আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে ৯ তারিখ পর্যন্ত হালকা মাঝারী  বৃষ্টি হবে। দেখা যাক অসুর নাসিনী মায়ের শক্তি বরুন দেবতার এই বর্ষার ভ্রুকুটি দমাতে পারে কিনা।

পূজোতে নিমতৌড়ি হোমের প্রায় ৪০০ জন আবাসিকদের ২০১১ সাল থেকে সাংসদ ও পরবর্তী সময়ে মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী পূজো পোশাকের ব্যাবস্থা করে দেন। আর সেই পোশাক পরে মনের আনন্দে জেলা  প্রশাসনের সহায়তায় হোম আবাসিক ও অন্যান্য দিব্যাংজনেরা পূজোর দিন গুলোতে আনন্দে মেতে উঠে।

এই প্রথম বাজার থেকে পোশাক না কিনে নিমতৌড়ি হোমের মুক-বধীর দিব্যাংরা পছন্দ মতো কাপড় কিনে পোশাক বানিয়েছে আর তার থেকে কিছু অর্থ বাঁচিয়ে ৫০জন ট্রাই সাইকেল আরোহীকে বৃষ্টি বাদলাতে  যারা ছাতা ব্যবহার করতে পারবে না সেই রকম দাদা- দিদিদের জন্য বর্ষাতি কিনে তাদের হাতে তুলে দিয়ে এক বিশেষ নজীর গড়ল। নতুন জামা, বর্ষাতি  পরে তারা ট্রাই-সাইকেলে করে যাতে মাতৃদর্শন করতে পারে তার জন্য এই উদ্যোগ।

দিব্যাঙ্গদের এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী।

এদিনের অনুষ্ঠানে ৪০০ জনের জন্য নতুন পোশাক তুলে দেওয়া হয়, রাধামনির মতিলাল ধাড়া, ভৃগুরাম সামন্ত, প্রণব জানা, চিত্ত দাস, অনিল দাস বর্ষাতি পেয়ে ভীষণ খুসি। এবৎসরের পূজোয় প্রতি বছরের মতো নিমতৌড়ি দিব্যাংজনেরা তাদের গান-বাজনার দল নিয়ে অনুষ্ঠান পরিবেশনের জন্য এখন প্রস্তুত। সব মিলিয়ে শারদীয়া দুর্গোৎসবে দিব্যাংরাও আনন্দে মেতে উঠার আনন্দে পম্পা, কাকলি, প্রিয়াঙ্কা, রুমা, পার্বতীরা এখন প্রহর গুনছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *