Breaking News

৩৯ দিন ধরে অসহায়দের পাশে ঝাড়গ্রাম জেলার গোপীবল্লভপুরের একদল যুবক

Post Views: website counter

করোনা পরিস্থিতিতে দেশজুড়ে লকডাউনের সংকটকালে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছেন ঝাড়গ্রাম জেলার গোপীবল্লভপুরের একদল যুবক। নিজেরা আর্থিক অনুদান দিয়েছেন, পাশাপাশি, নিজেদের বন্ধু-বান্ধব ও শুভানুধ্যায়ীদের কাছ থেকে সাহায্য নিয়ে টানা ৩৯ দিন ধরে প্রতিদিন দুপুরে রান্না করা খাবার তুলে দিচ্ছেন সমস্যায় থাকা মানুষদের হাতে।

তারা প্রতিদিন খাবার তুলে দিচ্ছেন গোপীবল্লভপুর সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল ভর্তি রোগীদের পরিজনদের, এলাকার ভবঘুরেদের, স্থানীয় এলাকার বেশ কিছু দুঃস্থ অসহায় মানুষদের। এরসাথে দিন দশেক হলো যুক্ত হয়েছে গ্রামে ফিরে স্থানীয় স্কুলে কোয়ারেন্টিনে থাকা পরিযায়ী শ্রমিকরা। আবার এই নিয়মিত রুটিনের উপভোক্তা মানুষদের পাশাপাশি এরা অনেক সময় খাবার তুলে দিচ্ছেন এই এলাকার উপর দিয়ে ফেরা পরিযায়ী শ্রমিকদের মুখে। প্রায় প্রতিদিনই গড়ে ৩০০ থেকে ৩৫০ জন মানুষের মুখে অন্ন তুলে দিচ্ছেন এই যুবকরা। কখনো সব্জি ভাত, কখনো ডিম ভাত, কখনো মাছ-মাংসও থাকছে মেনুতে।

যুবকদের এই উদ্যোগকে যেমন প্রশাসনের পক্ষ থেকে স্বাগত জানানো হয়েছে, তেমনি সাধুবাদ জানাচ্ছেন শুভবুদ্ধি সম্পন্ন মানুষ। আর শুধু সাধুবাদ জানিয়েই ক্ষান্ত থাকছেন না অনেকেই,বাড়িয়ে দিচ্ছেন সাহায্যের হাতও। এভাবেই শনিবার সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলেন আমরদা গ্রামের যুবক দিব্যকান্তি ভূঞ্যা। শনিবার রোগীর পরিজন, ভবঘুরে, স্থানীয় মানুষ, পরিযায়ী শ্রমিকমিলে প্রায় ৩৫০ জনকে খাওয়ানো হয়। আম্ফানের দুর্যোগের দিনেও থেমে থাকেনি যুবকদের উদ্যম এবং পরিষেবা।

আর যাঁদের উদ্যমে ও নেতৃত্বে এগিয়ে চলেছে এই কর্মসূচি তাঁরা হলেন সত্যকাম পট্টনায়েক,কল্যাণ বারিক, সত্যরঞ্জন বারিক, সুব্রত সিংহ,শঙ্খ শ্যামল,প্রতীক দত্ত,জয়দেব দাস,কাজল দাস,সন্তু প্রধান, আকাশ দাস, অভিষেক পালসহঅন্যারা। এঁদের বক্তব্য, বিপদের সময়ে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে আমরা একাজে এগিয়ে এসেছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!